পঞ্চগড়ে চা চাষীকে নির্যাতনের প্রতিবাদে তেঁতুলিয়ায় চাষীদের প্রতিবাদ সমাবেশ

প্রকাশিত : জুন ১৫, ২০২২ , ৮:৪০ অপরাহ্ণ

ডিজার হোসেন বাদশা, পঞ্চগড় জেলা প্রতিনিধি, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন:পঞ্চগড়ে মরগেন চা কারখানায় ক্ষুদ্র চা চাষীদের শারিরীক নির্যাতন করে হয়রানী মুলক মামলা দায়েরের প্রতিবাদসহ ৪ দফা দাবীতে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে ক্ষুদ্র চা চাষীরা।
বুধবার (১৫ জুন) সন্ধ্যায় তেঁতুলিয়া উপজেলার শালবাহান ইউনিয়নের মাঝিপাড়া দ্বি-মুখী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এ প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে ক্ষুদ্র চা চাষী নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটি। ক্ষুদ্র চা চাষী নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির আহ্বানে রফিক মন্ডল এর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, পঞ্চগড় সদর উপজেলার অমরখানা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান নুরু, ক্ষুদ্র চা চাষী আজিজুল হক, বেলার উদ্দীন মুন্সি, সাদ্দাম, হামিদ, এমদাদ, আনিছ প্রমুখ। এসময় বক্তারা বলেন, প্রতি নিয়ত চা কারখানা কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন ভাবে ক্ষুদ্র চা চাষীদের বিভিন্ন ভাবে হয়রানী ও নির্যাতন চালায়। এর মাঝে মূল্য সিন্ডিকেট করে থাকে। গত ১৩ জুন দুপুরে ২ জন ক্ষুদ্র চাষী পঞ্চগড় সদর উপজেলায় অবস্থিত মরগেন চা কারখানায় কাঁচা চা পাতা নিয়ে যায়। এসময় মরগেন চা কারখানা কর্তৃপক্ষ ২ জন ক্ষুদ্র চাষীর কাছ থেকে জেলা প্রশাসনের নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে অধিক ৪০ শতাংশ মূল্যে চা পাতার মূল্য ধরে। এতে দুপক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। পরে কারখানা কর্তৃপক্ষ ২ জন চা চাষীকে মারধর করে কারখানায় আটক করে রাখে। পরে অন্যান্য চা চাষীদের সহায়তায় তাদের আহত অবস্থায় উদ্ধার করে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু এর পরে কারখানা কর্তৃপক্ষ চাষীদের নামে মিথ্যা মামলা দেয়। পরে মরগেন টি কারখানার নির্দেশে সকল কারখানায় কাঁচা চা পাতা নেয়া বন্ধ করে দেয়। যে কারণে ক্ষতিতে পড়ে যায় চা চাষীরা। তাই ওই চাষীদের নামে দেয়া মিথ্যা মামলা অবিলম্বে প্রত্যাহার, মরগেন চা কারখানার মালিককে চাষীদের কাছ থেকে ক্ষমা চাওয়া, জেলা প্রশাসনের দেয়া নির্দিষ্ট মূল্যে চা সংগ্রহ করাসহ জেলার সকল চা কারখানায় দ্রুত কাঁচা চা পাতা ক্রয়ের দাবী জানানো হয় প্রতিবাদ সমাবেশে। তবে অবিলম্বে দাবী দ্রুত আদায় না হলে কঠোর কর্মসূচীর হুশিয়ারি দেন তারা।