বাড়ছে মেঘনা নদীর পানি উপকূলে আতঙ্ক: বন্ধ নৌ যোগাযোগ

প্রকাশিত : জুন ১৮, ২০২২ , ৭:১৯ অপরাহ্ণ

ইয়াকুব নবী ইমন, নোয়াখালী জেলা প্রতিনিধি, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: পূর্বাঞ্চলের উজানের ঢল ও অতিরিক্ত বৃষ্টির পানির প্রভাবে হু হু করে বাড়ছে নোয়াখালীর দক্ষিণাঞ্চলের মেঘনা নদীর পানি। ফলে মেঘনা উপকূলে বিরাজ করছে আতঙ্ক। দুর্ঘটনা এড়াতে শনিবার দুপুর থেকে জেলার বিচ্ছিন্ন দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার নৌ যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। নিঝুম-দ্বীপসহ বিচ্ছিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। হাতিয়ার স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মী আরিফুল ইসলাম জানান, শুক্রবার সকাল থেকে জেলার উপকূলীয় উপজেলা হাতিয়া, সুবর্নচর, কোম্পানীগঞ্জে ভারি বৃষ্টিপাত অব্যাহত রয়েছে। শনিবারও দিনভর এ অঞ্চলে বজ্রসহ বৃষ্টি হচ্ছে। সেই সাথে উজানের পানির প্রভাবে নদীতে জোয়ার বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে নদী তীরবর্তী এলাকাগুলোতে পানি প্রবেশ করতে শুরু করেছে। পানির বড় বড় ঢেউয়ের কারণে হরনী ইউনিয়নের দিদার বাজার এলাকার দক্ষিণ পাশে পানি উন্নয়ন বোর্ড নির্মিত বেড়িবাধ ভেঙ্গে যাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। ওই এলাকার মানুষ আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। এদিকে অতিরিক্ত জোয়ারের কারণে হাতিয়ার উপজেলার বিচ্ছিন্ন ইউনিয়ন নিঝুম-দ্বীপসহ বিচ্ছিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। সাধারণ মানুষকে নিরাপদে থাকতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে। হাতিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ সেলিম হোসেন জানান, সমুদ্র বন্দর সমূহকে তিন নাম্বার সতর্ক সংকেত দেওয়ায় যে কোন প্রকার দুর্ঘটনা এড়াতে আমরা চেয়ারম্যান ঘাট থেকে নলচিরা ও তমুরদ্দি ঘাটের সকল প্রকার নৌ যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়েছি। যে কোন পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রশাসন প্রস্তুত রয়েছে। নোয়াখালী পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মুন্সী আমির ফয়সল জানান, হরনীর দিদার বাজার এলাকায় বেড়িবাধ ভাঙ্গন দেখা দেয়ার বিষয়টি জানার পর আজ সকালে আমরা লোক পাঠিয়েছি। বেড়িবাধটি নতুন তাই জোয়ারের পানিতে সামান্য ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। আমরা এটি দ্রুত ঠিক করার চেষ্টা করছি। শনিবার বিকালে নোয়াখালী জেলা প্রশাসক দেওয়ান মাহবুবুর রহমান জানান, বর্ষায় এমনিতে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পায়, এতে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে ইউএনওদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বেড়ি বাধ ভাঙ্গন দেখা দেওয়ার বিষয়টি খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।