নোয়াখালীতে প্রস্তুত ১ লাখ ৩৮ হাজার কুরবানির গরু

প্রকাশিত : জুন ২৭, ২০২২ , ৫:১২ অপরাহ্ণ

ইয়াকুব নবী ইমন, নোয়াখালী জেলা প্রতিনিধি, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে নোয়াখালীতে কুরবানির জন্য প্রস্তুত রয়েছে ১ লাখ ৩৮ হাজার গরু। বিগত বছরের তুলনায় এবার চাহিদা অনুযায়ী জেলায় কুরবানির গরু রয়েছে। সরেজমিন জেলার কয়েকটি গরু খামারে গিয়ে দেখা যায়, খামারিরা ঈদের আগে বিক্রির জন্য গরুগুলোকে শেষ মূহুর্তের পরিচর্যা করছেন। ভালো ভালো খাবার দিচ্ছেন গরুগুলোকে। গরুর স্বাস্থ্য ঠিক আছে কিনা তাও নিয়মিত পরীক্ষা নিরীক্ষা করাচ্ছেন। বেগমগঞ্জ উপজেলার মিরওয়ারিশপুর ইউনিয়নের কালাপোল এলাকার হক এগ্রো ও সুবর্নচর উপজেলার হালিম বাজার এলাকার সারা এগ্রোতে গিয়ে দেখা যায়, গরুগুলো বিক্রির জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে। বেগমগঞ্জের হক এগ্রোর মালিক মাহফুজুল হক আবেদ জানান, আমাদের এখানে সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক পরিবেশে ও প্রকৃতিতে উৎপাদিত খাবার খাইয়ে গরুগুলোকে মোটা তাজা করা হয়েছে। এখানে বাইরের কোন কিছুই ব্যবহার করা হয়নি। একই কথা জানালেন সুবর্নচরের সারা এগ্রোর মালিক নুর হোসেন মানিক। তিনি আরো জানান, সুবর্নচরে বিশাল এলাকা জুড়ে গড়ে তোলা খামারে গরুগুলো রেখে সারা বছর লালন পালন করি। ঈদের সময় সুবর্নচর ও বেগমগঞ্জের বাংলা বাজার নিয়ে গরুগুলো বিক্রি করে থাকি। আমরা গরুগুলোকে সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক খাবার খাইয়ে বড় করি। গ্রাহকরা সম্পূর্ণ হালাল পশু দিয়েই কুরবানি দিতে পারবেন। নোয়াখালী জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা কাজী মো: রফিকুজ্জামান জানান, গণবসতিপূর্ন জেলা হলেও এবার জেলায় কুরবানির পশুর সংকট হবেনা। চাহিদা অনুযায়ী আমাদের পর্যাপ্ত গরু রয়েছে। জেলায় খামারি ও পারিবারিক মিয়ে ১ লাখ ৩৮ হাজার পশু কুরবানির জন্য প্রস্তুত রয়েছে। তাই বাইরে থেকে এবার জেলায় কুরবানির পশু আসার সম্ভাবনা কম বলেও জানান জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা।