নিরাপদ খাদ্য বিষয়ে প্রচারণা কর্মসূচি সমাপ্ত

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ৫, ২০২২ , ১০:২৬ অপরাহ্ণ

ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন:মানবিক মূল্যবোধের সংস্কৃতি তৈরি না হলে ভেজালমুক্ত, উন্নত সমাজ সম্ভব নয়-অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মিজান চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার(উন্নয়ন) ও নব নিযুক্ত রোহিঙ্গা শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবর্তন কমিশনার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান বলেছেন শিক্ষা মানুষের দক্ষতা বাড়ায়, কিন্তু অন্যের সমস্যায় ব্যতীত ও বেদনাহত হওয়া শেখায় না। ফলে শিক্ষিত মানুষগুলো মানুষের কষ্ঠে ব্যতীত হচ্ছে না। দুর্নীতির মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাৎ করছে, অনেকে আবার পণ্য-মূল্য বাড়িয়ে, সরবরাহ লাইনে কৃত্রিম সংকট তৈরি করে সমাজকে অস্থির করছে। সামাজিক সংস্কৃতির মূল্যবোধ মানুষকে অন্যের প্রতি মমত্ববোধ ও মানবিকতা জাগরুগ করতে শেখায়। আজকে যারা মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থী তারা ২০৪১ সালে দেশের নেতৃত্ব প্রদান করবে। তাই তারা যদি সত্যিকারের মানবিক গুণাবলী সম্পন্ন মানুষ হতে না পারে তাহলে ২০৪১ সালে উন্নত বাংলাদেশ ও মানবিক সমাজ বিনির্মাণ সম্ভব নয়। তিনি আরও বলেন খাদ্যে ভেজাল এখন একটি মারাত্মক সামাজিক ব্যাধিতে পরিণত হয়েছে। মানুষ না খেয়ে মরছে না। প্রাণঘাতি নানা রোগ এখন খাদ্যে ভেজালের কারনে ঘটছে। যার কারনে যারা পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে যাচ্ছে তাদের ৮৩ শতাংশ মানুষই চিকিৎসার জন্য যাচ্ছেন। আবার বিদেশী সংস্কৃতির কেএফসি, পিৎজা, ফুডপান্ডা ও কোমল-পানীয়সহ নানা ধরনের ফাস্টফুডে আসক্তির সংখ্যাও ক্রমাগত বাড়ছে। আর এভাবেই নিজের অজান্তেই বিপুল পরিমাণ অর্থ বিদেশে পাচার হচ্ছে। সোমবার (০৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ইং) নগরীর চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুলে ক্যাব যুব গ্রুপ চট্টগ্রাম মহানগরের উদ্যোগে দুইদিন ব্যাপী “মায়ের দেয়া বাসায় তৈরি টিফিন খাবো, বাইরে খোলা ও অস্বাস্থ্যকর খাবার বর্জন করবো” শিরোনামে নিরাপদ খাদ্য বিষয়ে প্রচারণা কর্মসূচির সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত মন্তব্য করেন।
কলেজিয়েট স্কুলের প্রধান শিক্ষক মুহাম্মদ সিরাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে ক্যাব বিভাগীয় সমন্বয়কারী শম্পা কে নাহার ও সংগঠক জহুরুল ইসলামের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ক্যাব কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি এস এম নাজের হোসাইন, জাতীয় ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদপ্তরের বিভাগীয় উপ-পরিচালক মোঃ ফয়েজউল্যাহ, চট্টগ্রাম ডায়াবেটিক জেনারেল হাসপাতালের সাবেক উপ-পরিচালক পুষ্টিবিদ হাসিনা আকতার লিপি, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি এম নাসিরুল হক। আলোচনায় অংশ-নেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক কাউন্সিলর আবিদা আজাদ, সাফা মোতালেব কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি হাজী আবু তাহের, ক্যাব মহানগরের সাংগঠনিক সম্পাদক জন্নাতুল ফেরদৌস, ক্যাব পাঁচলাইশের সাধারণ সম্পাদক মোঃ সেলিম জাহাঙ্গীর, সদরঘাট থানা সভাপতি শাহীন চৌধুরী, ক্যাব চাঁন্দগাও থানা সভাপতি মোঃ জানে আলম, ক্যাব মহানগরের সভাপতি আবু হানিফ নোমান, ক্যাব যুব গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক অংসাহ্লা মার্মা, যুগ্ম সম্পাদক আমজাদুল হক আয়েজ, সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ আবরার সুজন আয়ান, প্রচার সম্পাদক ইমদাদুল ইসলাম, সহ-প্রচার সম্পাদক রাসেল উদ্দীন, দপ্তর সম্পাদক আবুল কালাম, সহ-দপ্তর সম্পাদক মোঃ শাহরিয়ার আলম তৌসিফ, সদস্য নাঈম মুহাম্মদ নিশা, সালমান রশিদ অভি প্রমুখ। তিনি আরও বলেন মা পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ আল্লাহর নেয়ামত। সন্তানের কল্যাণ কামনায় যিনি সর্বদা মগ্ন থাকেন, তিনি মা। মা যে টিফিন সন্তানকে দিবেন, সেটা পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ টিফিন হবে। কারণ মা টিফিন তৈরি করেন মমতা ও ভালবাসা দিয়ে, সেখানে কোন লৌকিকতা ও মুনাফা লাভের মনোবৃত্তি নাই। তাই মায়ের দেয়া টিফিন নিয়ে বাইরের খোলা ও অস্বাস্থ্যকর টিফিন বর্জন করতে হবে। বক্তারা আরও বলেন সুস্থ ও মেধাবী জাতি গঠনে নিরাপদ ও সুষম খাদ্যের বিকল্প নাই। আগামী প্রজন্মকে সুস্থ, সবল রাখতে ও মেধাবী হিসাবে গড়ে তুলতে ভেজালমুক্ত নিরাপদ খাদ্য গ্রহণ এবং দেশীয় ফল, শাক সবজি গ্রহণে সামাজিক আন্দোলনের বিকল্প নাই। কারণ ভেজাল ও জাঙ্কফুড জাতীয় খাবার গ্রহণের কারনে শিশুরা অমনোযোগী, বখাটে, স্থুল ও রোগাক্রান্ত হচ্ছে। আবার খোলা, ধুলা-বালি, দুষিত পানি ব্যবহার ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে তৈরি খাবার গ্রহণের কারনে ডায়রিয়া, পেটের পীড়া, জন্ডিস, হাপানী, ডায়াবেটিস, ক্যান্সার, হৃদরোগসহ নানা প্রাণঘাতি রোগের আক্রমণ ক্রমাগত বাড়ছে। আর জাঙ্কফুডে প্রয়োজনীয় খাদ্য-পুষ্টি নাই, প্রচুর চর্বি, চিনি ও লবণের আধিক্য। সেকারনে আলুর চিপস, ক্যান্ডি, পিৎজা, বার্গার, চমুসা, সিঙ্গারা, ফুসকা, কোমল পানীয়তে প্রচুর পরিমাণে পরিশোধিত কার্বোহাইড্রেড, চর্বি ও সোডিয়াম থাকায় অস্বাভাবিক স্থুলতা, বিভিন্ন দীর্ঘমেয়াদী রোগ টাইপ২ ডায়াবেটিস, ক্যান্সার, কার্ডিওভাসকুলার ডিজিস, লিভার রোগের সংক্রমণ প্রচণ্ড আকারে বাড়ছে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তির।