কুড়িয়ে পাওয়া ৫ লাখ টাকা অন্ধ কোরানের হাফেজের জন্য ব্যয় করার আগ্রহ প্রকাশ

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ৮, ২০২২ , ২:৫৭ পূর্বাহ্ণ

বিধান দাস, ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: রাস্তায় কুড়িয়ে পাওয়া ৫ লাখ টাকাই জীবন অতিষ্ঠ করে তুলেছে ঠাকুরগাঁওয়ের যুবক সৌরভের। সম্প্রতি রাস্তায় কুড়িয়ে পাওয়া পাঁচ লাখ টাকা ফেরত দিতে শহরজুড়ে মাইকিং করেন সৌরভ। বিভিন্ন গণমাধ্যমে এ সংবাদ প্রচারে ঘটনাটি রীতিমতো ভাইরাল হয়ে যায়। সাধারণ মানুষের ভালোবাসায় নায়ক বনে যান সৌরভ। শুরুতে ব্যাগ ভর্তি টাকার কোনও মালিক খুঁজে পাওয়া যায়নি। কিন্তু কয়েকদিন পর একে একে টাকার মালিকানা দাবি করতে থাকেন মোট ১৫টি পক্ষ। সৌরভ জানায় ভালো কিছু করতে গেলে এত বাধা কেন বুঝতেছি না। অনেকে আবার নেগেটিভ কথাবার্তা বলছে। জনকল্যাণের কথা চিন্তা করে একটি শুভ চিন্তা নিয়েই সঠিক পাওনাদারের কাছে টাকাটা তুলে দিতে মাইকিং করেছি । এখন সেই উদ্যোগই যেন জ্বালা হয়ে দাঁড়িয়েছে আমার জন্য। এক রিকশা চালক আমাকে বলছে আমি নাকি ৩০ লাখ টাকা কুড়িয়ে পেয়ে ৫ লাখ টাকার মাইকিং করেছি। এই গুজবটা কোথা থেকে উঠল? নিজের টাকা দাবি জানিয়ে ১৫ জন ফোন করেছেন। তবে কেউই সরাসরি উপস্থিত হতে চান না। বিকাশ অথবা ব্যাংকের মাধ্যমে টাকা পাঠাতে বলছেন। আমি তাদের সঠিক প্রমাণ দিয়ে টাকা নিয়ে যেতে অনুরোধ করছি। কিন্তু কেউ এখন পর্যন্ত আসে নি। শেষ পর্যন্ত এই কুড়িয়ে পাওয়া টাকার কোনও প্রকৃত মালিককে না পাওয়া গেলে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে তা একজন অন্ধ কোরানের হাফেজের চোখের চিকিৎসার জন্য ব্যয় করতে চাই। ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা প্রশাসক মাহবুবুর রহমান বলেন, এরকম ক্ষেত্রে সরকারের সুনির্দিষ্ট কোনও নির্দেশনা নেই। তবে টাকাটা অন্য কোনও খাতে খরচ করতে কিছুটা সময় নেয়া উচিৎ বলে পরামর্শ দেন তিনি। সৌরভের নৈতিকতা ও স্বচ্ছতা এখনো সাধুবাদ জানাচ্ছেন এলাকাবাসী। তারা মনে করেন, সঠিক প্রমাণ নিয়েই টাকার মালিকানা দাবি করা উচিৎ। অকারণে তাকে বিরক্ত না করার পরামর্শ দেন তারা। টাকাগুলো কোথাও দান করার পরও যদি প্রকৃত মালিককে পাওয়া যায়, তিনিও নিরাশ হবে না বলে আশ্বস্ত করেন সৌরভ।