শ্রীমঙ্গলে ব্র্যাক কর্মী নিখোঁজ

প্রকাশিত : নভেম্বর ২৯, ২০২২ , ১০:০৮ অপরাহ্ণ

মশাহিদ আহমদ, নিজস্ব প্রতিনিধি, মৌলভীবাজার, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: শ্রীমঙ্গলে ব্র্যাক এনজিও শিববাড়ী শাখার কর্মসূচী সংগঠক দুই সন্তানের জননী মোছা: নাজমা খাতুন (৩২) নিখোঁজ রহস্য উদঘাটন হয়নি দীর্ঘ ২৭ দিনেও। গত ৩ নভেম্বর থেকে আত্মীয়-স্বজনসহ বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ করেও তাকে পাওয়া যায়নি। তার ব্যবহৃত মোবাইল (ফোন নম্বর-০১৭৮২-৩২৭০১৫, অফিসিয়াল ট্যাব (আইএমইআই নম্বর- ৩৫৯৮৮৫৮৫০২৪৩৭৫০) ও বন্ধ রয়েছে। নিখোঁজ ব্র্যাক এনজিও কর্মী নাজমা খাতুনের অসুস্থ স্বামী শাহ মোঃ সোহেলসহ পরিবারের লোকজন এ ঘটনায় ব্র্যাক শিববাড়ী শাখার ব্যবস্থাপক মহসিন কবিরসহ ব্র্যাক এনজিও এর দায়িত্বশীলদের চরম অবহেলাকে দায়ী করছেন। সাধারণ ডায়েরী (জিডি) সূত্রে জানা গেছে, গত ৩ নভেম্বর সকাল সাড়ে ৮টায় অফিস হতে বের হয়ে শিববাড়ী বস্তী, ভায়া পাড়া ও কালিঘাট এলাকা থেকে ঋণের কিস্তি সংগ্রহ করে দুপুর ২ টায় শিববাড়ী শাখা অফিসে টাকা জমা দিয়ে পুনরায় ঐ এলাকায় টাকা সংগ্রহের জন্য যান। সে সময় আনুমানিক বিকাল ৫ টার মধ্যে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় ব্র্যাক শিববাড়ী শাখার ব্যবস্থাপক মহসিন কবির শ্রীমঙ্গল থানায় সাধারণ ডায়েরী (নং- ১৬৩, তারিখ- ০৩/১১/২০২২ইং) করেন। সূত্রে জানা গেছে, বিএ পাস দুই সন্তানের জননী মোছা: নাজমা খাতুন প্রতিবেশী, অফিসের কর্মকর্তা, কর্মচারী সকলের কাছেই অত্যন্ত শান্ত স্বভাবের ও একজন পরিশ্রমী নারী, ব্র্যাক এনজিও কর্মসূচীর দক্ষ সংগঠক হিসাবে সু-পরিচিত। নাজমা আক্তার নিখোঁজের ব্যাপারে স্বজনরা কাউকে শনাক্ত করতে পারছেন না। এদিকে বাসায় অসুস্থ স্বামী ও দুটি শিশু সন্তান নিয়ে হতাশা ও আতঙ্কের মাঝে সময় অতিবাহিত করছেন। অবুঝ শিশুদের মায়ের সাথে কথা বলতে ও মুখ দেখতে শুধুই কান্না করছে। কিছুতেই কান্না থামছে না। এনজিও কর্মী নাজমা খাতুনের পরিবার সূত্র জানায়, হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল থানার নারকেল তলা গ্রামের শাহ মোঃ সোহেল এর স্ত্রী মোছা: নাজমা খাতুন। প্রায় ৩ বছর যাবৎ শ্রীমঙ্গলে ব্র্যাক এনজিও শিববাড়ী শাখার কর্মসূচী সংগঠক হিসাবে কর্মরত। স্বামীর সাথে বর্তমানে পশ্চিম মুসলিমবাগ (সুনগইর) তোহায়িদ ড্রাইভার এর বাড়িতে ভাড়া থাকেন। স্বামী সোহেল অসুস্থ এবং তিনি প্যারালাইজড। তার দুই কন্যা সন্তান মদিনা (৭) ও তানজিলা (৫)। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে অসুস্থ স্বামী সোহেল বলেন- মেয়েরা প্রতিনিয়ত মার জন্য কান্নাকাটি করছে। ঘটনার দিন সকালে অফিসের উদ্দেশ্যে বের হয়ে যাওয়ার পর এখন পর্যন্ত তিনি ঘরে ফেরেননি। তার সন্ধান ফিরে পেতে পুলিশ অনেক চেষ্টা করছে, কিন্তু ব্র্যাক শিববাড়ী শাখার ব্যবস্থাপক মহসিন কবিরসহ ব্র্যাক এনজিও এর দায়িত্বশীলরা চরম অবহেলা করছেন। নাজমা খাতুন এর বড় ভাই বলেন- ব্র্যাক শিববাড়ী শাখার ব্যবস্থাপক মহসিন কবির শ্রীমঙ্গল থানায় যে সাধারণ ডায়েরী করেছেন, সেখানে কিছু বিষয় তিনি গোপন রেখেছেন। জিডিতে অফিসের ব্যবহৃত নাজমার মুঠোফোন নাম্বারও দেন নি। নাজমা খাতুন এর মা রাবেয়া বেগম বলেন- ঘটনার দিন তিনি তার মেয়ের বাড়ীতে আসেন। মেয়ে অফিস থেকে মুঠোফোনে তাকে বলেন, বাসায় লতা বানিয়ে রাখছেন। অফিস থেকে এসে রান্না করে খাওয়াবেন। মেয়ের সাথে আজও দেখা হয়নি। নিখোঁজ ব্র্যাক এনজিও কর্মী নাজমা খাতুনের ছোট বোনের স্বামী একই ভাবে ব্র্যাক এনজিও এর দায়িত্বশীলরা চরম অবহেলাকে দায়ী করেন। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ব্র্যাক শিববাড়ী শাখার ব্যবস্থাপক মহসিন কবির বলেন, গত ৩ নভেম্বর থেকে ব্র্যাক এনজিও শিববাড়ী শাখার কর্মসূচী সংগঠক নাজমা খাতুন নিখোঁজ রয়েছেন। বিষয়টি হেড অফিসে অবগত করা হয়েছে। সেন্ট্রাল থেকে তদারকি চলছে। ভুক্তভোগী পরিবারের লোকজনদের অভিযোগ ভিত্তিহীন দাবী করে বলেন, নিখোঁজ রহস্য বের করতে আমরা চেষ্টা করছি। ব্র্যাক একটি পরিবার। পরিবারের একজন কর্মী নিখোঁজ হওয়ায় ব্র্যাক পরিবার মর্মাহত। তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই নুরুল জানান, জিডির সূত্র ধরে তদন্ত কার্যক্রম চলছে। ইতিমধ্যে বিভিন্ন থানায় বার্তা পাঠানো হয়েছে।