বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মোঃ রুহুল আমিনের শাহাদাত বার্ষিকী পালিত

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ১০, ২০২২ , ৮:১৩ অপরাহ্ণ

ইয়াকুব নবী ইমন, নিজস্ব প্রতিনিধি, নোয়াখালী, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মোঃ রুহুল আমিনের ৫০ তম শাহাদাত বার্ষিকী পালিত হয়। শনিবার সকাল ১০টায় বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ রুহুল আমিন গ্রন্থাগার ও স্মৃতি জাদুঘরে মিলাদ মাহফিল ও দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ করা হয়। এর আগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী জাহাঙ্গীর আলম। জাদুঘর সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ইসমাইল হোসেনের সভাপতিত্বে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মমিনুল ইসলাম বাকের, সহ সভাপতি আব্দুল আউয়াল, জেলা পরিষদের সাবেক প্যানেল চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন দুলাল, উপজেলা সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার গোলাম মাওলা, মাষ্টার আবু ইউসুফ, দেওটি ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আমিন শাকিল। বক্তব্য রাখেন জাদুঘর সদস্য সচিব ও বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ রুহুল আমিনের নাতি সোহেল চৌধুরী, মেয়ে নুর জাহান বেগম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ছেলে শওকত আলীসহ তার পরিবারের সদস্য ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালের ৭ ডিসেম্বর ভারতীয় নৌ-উপদেষ্টা কমান্ডার এমএনআর সামন্ত সার্বিক তত্ত্বাবধানে হিরণ পয়েন্ট ১০ নং সেক্টরে মোংলা বন্দর এবং খুলনা খালিশপুরে পাকিস্তানি নৌ-বাহিনীর ঘাঁটি পিএনএস তিতুমীর দখলের উদ্দেশ্যে নেভাল জেটি হলদিয়া হতে পদ্মা ও পলাশ এবং ভারতীয় রণতরী পানভেল দীর্ঘ পথ অতিক্রম করে ১০ ডিসেম্বর দুপুর ১২ টায় খুলনা শিপইয়ার্ডের কাছাকাছি পৌছায়। কিছুক্ষণ পরেই বাংলাদেশের প্রথম নৌ-সেনারা বিজয়ের পতাকা উড়াতে বিজয় উল্লাস করবে খুলনা শিপইয়ার্ড জেটিতে। যার নেতৃত্ব দিবেন নোয়াখালীর বীর কৃতি সন্তান রুহুল আমিন। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস, হঠাৎ করেই হিরন পয়েন্টে ৩-৪টি জঙ্গি বোমারু বিমান তাদের নৌ-জাহাজের উপরে উড়তে দেখা যায়, পাক হানাদার বাহিনীর বোমারু বিমান বলে সকল নাবিকের ধারণা ছিল। ‘পদ্মা ও পলাশ থেকে নাবিকেরা বিমান গুলোকে লক্ষ করে গুলি করার জন্য অধিনায়ক লে. কমান্ডার রায় চৌধুরীর অনুমতি চান। তিনি সম্মতি না দিয়ে এ গুলো ভারতীয় বলে জানান। কিন্তু এরই ফাঁকে বিমান গুলো মুহূর্তের মধ্যে গানবোট গুলোর উপুর্যপরি বোমা ফেললে ইঞ্জিন রুমে আগুন ধরে বিধ্বস্ত হয়। এতে বহু নাবিক হতাহত হলেন। গানবোট পলাশের ইঞ্জিনরুম তখনও সচল ছিল, কিন্তু অধিনায়ক রণতরী পরিত্যাগ করে অন্যত্র আশ্রয় নেয়ার জন্য নাবিকদের নির্দেশ দিলেন। কিন্তু রুহুল আমিন গানবোট ত্যাগ করতে সম্মত না হয়ে তিনি পলাশ নৌ-জাহাজকে রক্ষা করতে অপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যান। ততক্ষণে বিমানগুলো পুনরায় উড়ে এসে বৃষ্টির মতো গোলা বর্ষণ শুরু করে। এ সময় রুহুল আমিনের ডান হাত চূর্ণ-বিচূর্ণ হয়ে গেল। এবং ইঞ্জিন রুমে আগুন ধরে গেল। রুহুল আমিন আগুন নিয়ন্ত্রণে প্রচেষ্টা চালিয়ে জাহাজটিকে ভাসমান রেখে শত্রুদের উপর আক্রমণ করার চেষ্টা করেন। সে মুহূর্তে তিনি আবার বোমার আঘাতে গুরুতর আহত হন। দিশেহারা হয়ে তিনি নদীতে ঝাঁপ দিয়ে কোন রকম পাড়ে উঠতে সক্ষম হন। কিন্তু সেখানে অবস্থান রত পাকিস্তানি সেনাদের হাতে ধরা পড়েন। তাদের নির্মম অত্যাচারে ১৯৭১ সালে ১০ ডিসেম্বর তিনি শহীদ হন। ঘটনাস্থলে ৩ দিন তার লাশ পড়ে ছিল। শত্রুর ভয়ে কেউ লাশ উদ্ধার করতে সাহস করেনি। পরে স্থানীয় লোকজন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তার লাশ খুলনা রূপসা নদীর পাড়ে সমাহিত করেন।