জমে উঠেছে নোয়াখালীর তিন ইউপি নির্বাচন

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ২৬, ২০২২ , ৬:৪৯ অপরাহ্ণ

ইয়াকুব নবী ইমন, নিজস্ব প্রতিনিধি, নোয়াখালী, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: জমে উঠেছে নোয়াখালী সদর উপজেলার তিনটি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। চলছে শেষ মুহূর্তের প্রচার প্রচারণা। ভোট গ্রহণ করা হবে ইভিএম-এর মাধ্যমে। শান্তিপূর্ণ ভোটের পরিবেশ চায় নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করা প্রার্থীরা ও সাধারণ ভোটাররা। অবাধ ও সুষ্ঠু পরিবেশে ভোট গ্রহণের প্রস্তুতির কথা জানিয়েছেন জেলা নির্বাচন অফিসার। দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর আগামী ২৯ ডিসেম্বর নোয়াখালী সদর উপজেলার নোয়াখালী, নোয়ান্নই ও ধর্মপুর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। ভোটের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই জমজমাট ও উত্তপ্ত হচ্ছে ভোটের মাঠ। কাকা ডাকা ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে সভা, মিছিল, সমাবেশ, উঠান বৈঠক। প্রার্থীরা করে যাচ্ছেন গণসংযোগ। প্রতিদ্বন্ধী প্রার্থীরা ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে দিচ্ছেন উন্নয়নের নানা প্রতিশ্রুতি। নোয়াখালী ইউনিয়নে নৌকা প্রতিক নিয়ে ভোটের মাঠে থাকা বর্তমান চেয়ারম্যান এডভোকেট আতাউর রহমান নাসের জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী। একই ইউনিয়নে আনারস প্রতিক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ভোটের মাঠে থাকা মাওলানা ইয়াছিন আরাফাত নির্বাচিত হলে সমাজে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠার কথা জানান। এদিকে ধর্মপুর ইউনিয়নে ভোটের মাঠে থাকা স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মানজুরুল হাসান মঞ্জু দুর্নীতিমুক্ত আধুনিক মডেল ইউনিয়ন গঠতে মোটর সাইকেল মার্কায় ভোট দিতে ভোটারদের প্রতি আহবান জানান। অপরদিকে নোয়ান্নই ইউনিয়নে নৌকা প্রতিক নিয়ে ভোটের মাঠে থাকা বর্তমান চেয়ারম্যান দিলদার হোসেন জুনায়েদ নির্বাচিত হলে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখার কথা জানান। একই ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ভোটের মাঠে রয়েছেন একমাত্র নারী চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ আরো চারজন স্বতন্ত্র প্রার্থী। শান্তিপূর্ণ ভোট হলে জয়ের ব্যাপারে তারাও আশাবাদী। তারা হলেন হাফেজ নুর মোহাম্মদ বাবলু, চশমা প্রতিকের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী, আশরাফুল করিম বাবু, মোটর সাইকেল প্রতিকের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী, শাহিদা আক্তার, টেলিফোন প্রতিকের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী। পিছিয়ে নেই সদস্য প্রার্থীরাও। তারাও রাতদিন গণসংযোগ করে যাচ্ছেন। নোয়াখালী ইউনিয়নে সদস্য প্রার্থী মিজানুর রহমান গণসংযোগ করে ভোটারদের মন জয় করার চেষ্টা করছেন। শান্তিপূর্ণ ভোটের পরিবেশ চায় সাধারণ ভোটাররা। তিনটি ইউনিয়নের ভোট অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বলে জানান জেলা নির্বাচন অফিসার মেজবাহ উদ্দিন ও সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসার জুলকার নাইম জানান, তিন ইউনিয়নে ভোটার সংখ্যা ৮৫ হাজার। মোট প্রার্থী ১৯০ জন। চেয়ারম্যান প্রার্থী ৩৫ জন, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য ৬০জন এবং পুরুষ সদস্য ৯৫ জন। এদিকে গতকাল ধর্মপুর, নোয়ান্নই ও নোয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করার লক্ষ্যে ভাটরিটেক উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে প্রতিদ্বন্ধী প্রার্থীদের নিয়ে মতবিনিময় সভা করেছে জেলা পুলিশ। সুধারাম মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ আনোয়ার হোসেন এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার শহীদুল ইসলাম।পুলিশ সুপার তার বক্তব্যে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করার লক্ষ্যে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।