যৌতুকের নির্মমতার দুই মাসের শিশুকে নিয়ে রাস্তায় কিশোরী

প্রকাশিত : জুন ৩, ২০২২ , ১২:৫৫ অপরাহ্ণ

ডিজার হোসেন বাদশা, পঞ্চগড় প্রতিনিধি, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: যৌতুকের নির্মমতার দুই মাসের অসুস্থ শিশুকে নিয়ে অজানার পথে বের হয়েছে কিশোরী গৃহবধূ তাসমিনা আক্তার (১৭)। রাস্তায় অসুস্থ সন্তানসহ অসহায় অবস্থায় ঘুরতে থাকা কিশোরীকে ঘুরতে দেখে স্থানীয় লোকজন পুলিশে খবর দেয়। বৃহস্পতিবার (২ জুন) সন্ধ্যায় খবর পেয়ে পঞ্চগড় থানা পুলিশ শহরের সি এন্ড বি মোড় এলাকা থেকে অসুস্থ শিশুসহ কিশোরী মাকে উদ্ধার করে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করেছে।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, তাসমিনা পঞ্চগড় সদর উপজেলার সাতমেরা ইউনিয়নের পেলকুজোত গ্রামের হত-দরিদ্র তরিকুল ইসলামের মেয়ে। সে একই ইউনিয়নের বন্দিভিটা গ্রামের খয়রুল ইসলামের ছেলে আরিফ হোসেনের স্ত্রী।
খবর পেয়ে হাসপাতালে গেলে ওই কিশোরী তাসমিনা আক্তার সাংবাদিকদের অভিযোগ করে বলেন, ২০২০ সালে আরিফের সাথে পারিবারিক ভাবে ঘটা করে বিয়ে হয় তার। বিয়ের সময় যৌতুক হিসেবে বাবা এক লাখ টাকা দেয়। বিয়ের কদিনের মাথায় সন্তান সম্ভাবা হই। কয়েক মাস পরেই যৌতুকের দাবী তুলে শ্বশুরবাড়ির লোকজন। দাবী পূরণ করতে না পারায় স্বামীসহ শ্বশুর বাড়ির লোকেরা আমার উপর নির্মম নির্যাতন চালায়। তাদের নির্যাতনে প্রথম সন্তান নষ্ট হয়ে যায়। এর কিছুদিন পর আবার সন্তান সম্ভাবা হই। একই সাথে আমার উপর বাড়তে থাকে নির্যাতনের মাত্রা। বাবার বাড়িতে আশ্রয় নিয়ে জন্ম দেই এই কন্যা শিশুর। স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকেরা খবর না নেয়ায় অতিরিক্ত দু’জনের ভার দারিদ্র্যতার কারণে বাবা নিতে না পারায় বাধ্য হয়ে অজানার পথে বের হই। এ বিষয়ে পঞ্চগড় সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল লতিফ মিঞা জানান, খবর পেয়ে আমরা ওই অসুস্থ শিশুসহ কিশোরীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেছি। বর্তমানে তারা চিকিৎসাধীন রয়েছে। যৌতুক বা কোন বিষয়ে ওই তরুণে আমাদের এখনো অভিযোগ করেনি। আমরা তার বাবার বাড়ি ও স্বামীর বাড়ির লোকদের থানায় আসার খবর দিয়েছি। তারা আসলে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।