তিন মাসেও উদঘাটন হয়নি মৌ হত্যার রহস্য

প্রকাশিত : জুন ২০, ২০২২ , ৭:০০ অপরাহ্ণ

মশাহিদ আহমদ, মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধি, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন:জেলার কমলগঞ্জের শমশেরনগর ইউনিয়নের কেছুলুটি গ্রামের ফাতেমা জান্নাত মৌ (৬) হত্যার রহস্য ৩ মাসেও উদঘাটন হয়নি। জানা গেছে- গত ৯ মার্চ উপজেলার শমশেরনগর ইউনিয়নের খেছুলুটি গ্রামের ফরিদ মিয়ার ৬ বছরের শিশু ফাতেমা জান্নাত মৌ এর গলাকাটা ও ক্ষতবিক্ষত লাশ ঘরের পেছনে একটি নর্দমা-যুক্ত স্থান থেকে উদ্ধার করে শমশেরনগর ফাঁড়ি পুলিশ। ঐদিন রাতে নিহত শিশুর মা রুবি আক্তার বাদী হয়ে কমলগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। শিশু মৃত্যুর ঘটনাটি আদালতের নির্দেশে মৌলভীবাজার পিবিআই তদন্ত করছে। আলোচিত এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোন ক্লু অথবা জড়িত কেউ গ্রেফতার হয়নি। নিহত শিশুর পরিবার সূত্রে জানা যায়, ঘটনার দিন আসরের নামাজের পর মৌ বাড়ির পূর্ব দিকের রাস্তা দিয়ে উত্তর দিকে যায়। যাওয়ার পর আর বাড়িতে ফিরে আসেনি। সন্ধ্যায় অনেক খোঁজাখুঁজির পর ঘরের পেছনে একটি কাদাযুক্ত স্থান থেকে তার ক্ষতবিক্ষত মরদেহ পাওয়া যায়। শিশুর মা রুবি আক্তার ও তার বাবা ফরিদ মিয়াসহ স্থানীয় প্রতিবেশীরা জানান, প্রায় বিশ বছর আগে কেছুলুটি গ্রামে বসবাস শুরু করেন । এর আগে একই ইউনিয়নের ঈদগাহ টিলায় বসবাস করতেন। তাদের আয় উন্নতি দেখে কয়েকজন প্রতিবেশী নানাভাবে হয়রানি করছে তাদের। গত কয়েক বছরে একাধিক প্রতিবেশীর সঙ্গে তাদের কয়েকবার ঝগড়াঝাঁটি হয়েছে। নিহত শিশুর বাবা-মা পার্শ্ববর্তী একটি পরিবারের দিকে বিভিন্ন প্রসঙ্গ ইঙ্গিত করে বলেন, ঘটনার দিন শিশুটি যেই জায়গায় খেলতে গিয়ে ছিলো সেই স্থানে অবৈধ কোন কিছু দেখে ফেলেছে। এই জন্যই তাকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। তাদেরকে নিরপেক্ষ ভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করলে আসল রহস্য বের হয়ে আসবে। নিরপরাধ এ শিশুকে যারা নির্মমভাবে হত্যা করেছে তাদেরকে দ্রুত সনাক্ত করার দাবী জানাই। এবং দোষী ব্যক্তিদের ফাঁসি চাই। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তদন্তকারী সাব-ইন্সপেক্টর (নি:) শাহ মোকাদ্দির হোসেন বলেন, ঘটনাটি আলোচিত, তদন্ত চলছে, আমরা ঘটনার ক্লু-উদঘাটন করার চেষ্টা করছি।