ঈশ্বরগঞ্জে ছোট ভাইয়ের দায়ের কোপে বড় ভাই নিহত

প্রকাশিত : জুন ২২, ২০২২ , ৬:৪২ অপরাহ্ণ

মোঃ আজিজুর রহমান ভূঁঞা বাবুল, ব্যুরো প্রধান, ময়মনসিংহ, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে মাদকের টাকার জন্য ছাগল বিক্রি করতে চাওয়ায় ছোট ভাইয়ের দায়ের কোপে বড় ভাই নিহত হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার (২১ জুন) রাতে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার মগটুলা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের নওপাড়া গ্রামে এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। পরে খবর পেয়ে বুধবার (২২ জুন) দুপুরে পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের মর্গে প্রেরণ করে। এ ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে ছোট ছেলের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা করেছেন। পুলিশ ও নিহতের পরিবার সূত্রে জানাগেছে, ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার মগটুলা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের নওপাড়া গ্রামের রোমান ফকিরের ছেলে জার্মান ফকির (২৪) ও সিয়াম ফকির (১৯)। তারা দুই ভাই রাজমিস্ত্রীর সহকারী হিসেবে কাজ করতেন। এদের মধ্যে গত কিছুদিন ধরে জার্মান মাদকাসক্ত হয়ে পড়ে। মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে নওপাড়া বাজার থেকে বাড়ি ফিরে মাদকের টাকার জন্য চেঁচামেচি শুরু করে জার্মান ফকির। এসময় মা চম্পা আক্তার ১৫০ টাকা তার বড় ছেলে জার্মান ফকিরের হতে তুলে দেয়। কিন্তু তার বায়না ছিলো ৫০০ টাকার। সেই দাবি পূরণ না হওয়ায় ঘরে বেঁধে রাখা ছাগল নিয়ে ছুটতে শুরু করে জার্মান। এ সময় বাধা দেয় ছোট ভাই সিয়াম ফকির। আর ছাগল নিতে বাধা দেওয়াকে কেন্দ্র করে দুই ভাইয়ের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়। এক পর্যায়ে সিয়াম দা দিয়ে কোপ বসায় বড় ভাই জার্মানের বুকে। এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন তিনি। পরে খবর পেয়ে বুধবার দুপুরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করে। আর ঘটনার পর থেকে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায় সিয়াম ফকির। ঈশ্বরগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জহিরুল ইসলাম মুন্না বলেন, ‘মাদকের টাকার জন্য রাতের বেলায় ছাগল নিয়ে যেতে চাইলে ছোট ভাই বাধা দেয়। এ নিয়ে ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে দা দিয়ে কোপে এমন ঘটনা ঘটে বলে শুনেছি। এ ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা করেছেন। অভিযুক্ত পলাতক রয়েছেন। তাকে গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে।’