নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে ইসকন মন্দিরে হামলার ঘটনায় আসামী গ্রেফতার

প্রকাশিত : জুন ২৯, ২০২২ , ৮:৪৮ অপরাহ্ণ

ইয়াকুব নবী ইমন, নোয়াখালী জেলা প্রতিনিধি, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার চৌমুহনী বাজারে আন্তর্জাতিক কৃষ্ণভাবনামৃত সংঘ ইসকন মন্দিরে সাম্প্রদায়িক সহিংসার ঘটনার মামলার আসামী মাহফুজ হাসান হৃদয়কে(২৪) গ্রেফতার করেছে সিআইডি। গ্রেফতারকৃত মাহফুজ হাসান হৃদয় চৌমুহনী পৌরসভার গনিপুর গ্রামের বাহার মিয়ার বাড়ির বাহার মিয়ার ছেলে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে মঙ্গলবার বিকালে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়। নোয়াখালীর সিআইডির পুলিশ পরিদর্শক গিয়াস উদ্দিন জানান, কুমিল্লা শহরের নানুয়া দিঘীরপাড়স্থ পূজা মন্ডপে পবিত্র ধর্মগ্রন্থ আল-কোরআনের অবমাননাকারীদের কঠোর শাস্তি এবং তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানের রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম সংবিধান হতে বাতিল পূর্বক ১৯৭২ সনের সংবিধানে ফেরত যাওয়ার বিষয়ে বক্তব্যে বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রচার হয়। এর প্রতিবাদে ১৫ অক্টোবর জুমার নামাজ শেষে গ্রেফতারকৃত আসামীসহ অজ্ঞাতনামা ১৮০/২০০ জন হামলা চালিয়ে মন্দিরের মালামাল লুট করে। এ সময় বাধা দিলে তারা যতন সাহা, নিমাই দাস, পান্ত কুমার সহ আরো কয়েকজনকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করে। এসময় লাঠির আঘাতে যতন সাহা ঘটনাস্থলে এবং পান্ত কুমারকে শ্বাসরোধ করে পাশে পুকুরে ফেলে পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ এই দুজনের লাশ উদ্ধার করে। গ্রেফতারকৃত হৃদয় ঘটনার পর গ্রেফতার এড়াতে দীর্ঘদিন পালাতক ছিলো। পুলিশি তৎপরতা কমে যাওয়ায় সম্প্রতি সে এলাকায় আসে। অবশেষে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মঙ্গলবার রাতে তাকে গনিপুর দারোগার রাস্তার মাথা থেকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি আরো জানান, গ্রেফতারকৃত আসামীর স্বীকারোক্তি অনুযায়ী হামলার ঘটনার সময় ব্যবহৃত দুটি ছোরা, একটি চাপাতি ও একটি চাইনিজ কুড়াল উদ্ধার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হৃদয় সহ তার সাথে আরো কয়েকজন সংঘবদ্ধ ভাবে ইসকন মন্দিরে হামলা সহ ভাংচুর ও হত্যাকান্ডের কথা স্বীকার করেছে বলে জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।