মৌলভীবাজার সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে লিগ্যাল নোটিশ

প্রকাশিত : আগস্ট ৬, ২০২২ , ৫:২৯ অপরাহ্ণ

মশাহিদ আহমদ, মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধি, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: মৌলভীবাজার সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরিনা রহমান এর ক্ষমতার অপব্যবহার, পথচারীকে অপমান অপদস্থ, মারধর এবং একজন সরকারী কর্মকর্তার পেশাগত অসদাচরণ ও আচরণ তদন্ত-পূর্বক যথাযথ আইনী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য লিগ্যাল নোটিশ প্রদান করা হয়েছে। বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট এর এডভোকেট, ব্যারিস্টার-এট-ল সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন মৌলভীবাজার সদর উপজেলার নাসিরপুর গ্রামের ভুক্তভোগী কৃষক রিবাক মিয়া‘র পক্ষে গত ০৩/০৮/২০২২ইং তার স্বাক্ষরিত প্যাডে এডিসহ রেজিস্ট্রি ডাকযোগে জনপ্রশাসন এর সচিব, বাংলাদেশ সচিবালয়, ঢাকা, জেলা প্রশাসক, মৌলভীবাজার ও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে এ লিগ্যাল নোটিশ প্রদান করেন। লিগ্যাল নোটিশ সূত্রে জানা গেছে- সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিগত ০২/০৭/২০২২ইং, বিকাল সাড়ে ৪টায় একজন ভুক্তভোগীকে জনসম্মুখে কানধরে উঠ বস করান এবং চর-থাপ্পড় মারেন। যাহা পাশে থাকা কে বা কাহারা ক্যামেরায় রেকর্ড-করে বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশ করে তা ভাইরাল করে। বিগত ২৮/০৬/২০২২ইং, কৃষক রিবাক মিয়া’র একটি পাওয়ার ট্রিলার রাস্তা পারাপারের সময় উক্ত পাওয়ার ট্রিলারটি ব্যক্তিগত আক্রোশের মাধ্যমে পানিতে ফেলে দেন। অভিযোগ উঠেছে, সদর উপজেলার পার্শ্ববর্তী পৌর মার্কেটে ইউএনও সাবরিনা রহমান হঠাৎ করে উপস্থিত হয়ে ছোট ছোট দোকানপাট পূর্ব নোটিশ ছাড়াই ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেন। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে মৌলভীবাজার সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরিনা রহমান বলেন, “লোকটাকে পানিতে ফালাইনি, লোকটার ট্রাকটার পানিতে ফালাইছি। এসব রাস্তায় উঠার কথা নয়। পাওয়ার ট্রিলার রাস্তায় উঠতে হলে রাবার ড্রাম ব্যবহার করতে হবে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, সারা দিন অনেক কাজ করতে হয়। একজন মানুষ সবার কাছে ভালো হতে পারে না। কেউ প্রতি হিংসা করে এসব করছে।”