মৌলভীবাজারে চোর সন্দেহে গণপিটুনিতে ১ ব্যক্তির মৃত্যু

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২২ , ৯:০৩ অপরাহ্ণ

মশাহিদ আহমদ, মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধি, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: মৌলভীবাজার সদর উপজেলার ১২নং গিয়াসনগর ইউনিয়নের নিতেশ্বর গ্রামে চুরির অভিযোগে সিএনজি চালক সায়েম মিয়া (৩৫) নামের এক ব্যক্তির গণপিটুনিতে মৃত্যু হয়েছে। তিনি রিয়াজ মিয়ার পুত্র। এ ব্যাপারে স্থানীয় লোকজন ভিন্ন চিত্র তুলে ধরে বলেন, বৃহস্পতিবার ভোর রাতে পূর্ব কদুপুর গ্রামে একটি বাড়ীতে চুরি করতে প্রবেশ করলে বাড়ির লোকজন সায়েমকে আটক করে। এসময় তার সাথে থাকা আরও ২ থেকে ৩ জন পালিয়ে যায়। পরে আটক সায়েমকে গিয়াসনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার পথে কদুপুর এলাকার একটি পাম্পের সম্মুখে উত্তেজিত জনতার গণপিটুনিতে গুরুত্বর আহত হন। নিহত সায়েম এর ভাই সালমান মিয়া ও তার পিতা রিয়াজ মিয়া জানান- একই এলাকার ইমরান মিয়াগংদের বিরুদ্ধে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ১নং আমল আদালত মৌলভীবাজার (সি.আর ৩৯৮ নং) মামলা চলমান। পূর্ব পরিকল্পিতভাবে গত ১৪ সেপ্টেম্বর সায়েমকে নিতেশ্বরস্থ “নিল আকাশ বার্গার হাউজ” মৌলভীবাজার-শ্রীমঙ্গল রোড হইতে চেয়ারম্যান এর বাড়ীতে জোরপূর্বক তুলে নেওয়া হয়। তার মাথার বাম পাশে, বাম গালে, হাতে, শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারাত্মকভাবে আঘাত ও মারপিটের মাধ্যমে কাটা রক্তাক্ত জখম করে। পরে গ্রাম পুলিশসহ ভ্যানযোগে কদুপুরস্থ “মেসার্স সম্রাট এল.পি.জি অটো গ্যাস ফিলিং ষ্টেশন এন্ড কনভার্সন সেন্টারে” নিয়ে গিয়ে সেখানে তাকে ফেলে রাখা হয়। সংবাদ পেয়ে মৌলভীবাজার মডেল থানার পুলিশ ও স্থানীয়রা মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। সর্বশেষ এ ঘটনায় নিহত সায়েম এর ভাই সালমান মিয়া বাদী হয়ে ১২নং গিয়াসনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন টিটু (৩৬), ইমরান মিয়া (৩০), সাজ্জাদুর রহমান (৩৮), ইউনিয়নের গ্রাম পুলিশ ইসলাম মিয়া (৪৫), জয়নুদ্দিন মিয়া (৩৮)সহ অজ্ঞাতনামা ৫/৬জনকে বিবাদী করে মৌলভীবাজার মডেল থানায় আজ ১৫ সেপ্টেম্বর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ১২নং গিয়াসনগর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন টিটু বলেন- সায়েম এলাকায় চোর হিসাবে পরিচিত। উত্তেজিত জনতার ধাওয়া খেয়ে গণপিটুনিতে সে মৃত্যুবরণ করেছে। ঘটনার দিন আমার এক রোগী নিয়ে সিলেটে ছিলাম। বিষয়টি আমাকে মুঠোফোনে অবগত করা হয়েছে। যারা অভিযোগ তুলছে, তারা আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। মৌলভীবাজার মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ইয়াছুনুল হক জানান, নিহত সায়েম এর বিরুদ্ধে ৫/৬টি মামলা রয়েছে। বিষটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। তার বিরুদ্ধে এলাকায় একাধিক চুরির অভিযোগ। অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বাদী যে অভিযোগ করছে তার সত্যতা কি আছে? থানায় এর রকম কোন অভিযোগ আসেনি।