ঝিনাইদহে ৪৪৫টি মণ্ডপে হবে শারদীয় দুর্গাপূজা

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২২ , ৫:৩৮ অপরাহ্ণ

হেলালী ফেরদৌসী, ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধি, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: প্রতি বছর শরতের সময় সনাতন ধর্মাবলম্বী তাদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা উদযাপন করেন। এ বছরও ঝিনাইদহ জেলায় ৬ উপজেলায় ৪৪৫টি পূজা মণ্ডপে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হবে। দুর্গা পূজার মণ্ডপে প্রতিমা তৈরির কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন কারিগররা ও শিল্পীরা। তার কয়েক দিন পর শুরু হবে প্রতিমায় রঙের কাজ। আগামী ১ অক্টোবর ৫দিনব্যাপী ষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে শুরু হবে সনাতন হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। জেলা পূজা উদযাপন পরিষদ সূত্রে জানা যায় এবং ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক ও সরকারি কৌশুলি জি.পি অ্যাড. বিকাশ কুমার ঘোষ জানান,শারদীয় দুর্গোৎসব আগামী ১ অক্টোবর মহাষষ্ঠীর মাধ্যমে শুরু হয়ে ৫ অক্টোবর মহাদশমীতে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে শারদীয় দুর্গোৎসবের সমাপ্তি ঘটবে। সুষ্ঠুভাবে দুর্গাপূজা উদযাপনের লক্ষ্যে ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসন ও পুলিশ বিভাগের পাশাপাশি জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের পক্ষ থেকেও নেয়া হয়েছে ব্যাপক প্রস্তুতি। ঝিনাইদহ জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি কনক কান্তি দাস জানান, এ বছর জেলা শহরসহ ৬টি উপজেলায় মোট ৪৪৫টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। ইতোমধ্যে শিল্পীরা মণ্ডপগুলোতে প্রতিমা তৈরির কাজ অনেকখানি এগিয়ে নিয়েছেন। ঝিনাইদহ পৌরসভা এলাকায় ২০টি মন্ডপসহ সদর উপজেলায় মোট ১০৫টি মণ্ডপে,শৈলকুপায় ১২৭টি মণ্ডপে, কালীগঞ্জ ৮৭টি মণ্ডপে,কোটচাঁদপুরে ৪৬টি মণ্ডপে,মহেশপুরে ৪৭টি মণ্ডপে, হরিণাকুন্ডুতে ৩৩টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। জেলা প্রশাসক মনিরা বেগম বলেন, উৎসবমুখর পরিবেশে সুষ্ঠুভাবে শারদীয় দুর্গাপূজা আয়োজনের লক্ষ্যে সব ধরনের প্রশাসনিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। এই লক্ষ্যে প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী সমন্বিত-ভাবে দায়িত্ব পালন করবে। ঝিনাইদহ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আশিকুর রহমান বিপিএম,পিপিএম (বার) জানান, পূজামণ্ডপগুলোর নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। অন্যান্য বছরের মত পূজামণ্ডপগুলোতে পুলিশ, আনসার-ভিডিপি সদস্যদের সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা দেয়া ছাড়াও রয়েছে পুলিশের নিয়মিত টহল। জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সদর উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক উত্তোম গাংঙ্গুলি বলেন, আসন্ন দুর্গাপূজায় সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য প্রশাসনের পাশাপাশি পূজা উদযাপন পরিষদের পক্ষ থেকেও প্রতিটি মণ্ডপে স্বেচ্ছাসেবকরা দায়িত্ব পালন করবেন। শান্তি ও সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে শারদীয় দুর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হবে বলে তিনি জানান।