নদী ভাঙ্গন রোধে টেকসই ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর: জাহিদ ফারুক

প্রকাশিত : জুন ২, ২০২২ , ১২:৩৬ অপরাহ্ণ

জামালপুর, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন:পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক বলেছেন, সরকার নদী ভাঙন ঠেকাতে ও নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। নদী ভাঙনে যাদের বসত ভিটা বিলীন হয় তাদের মত কষ্ট আর কারও নেই। এজন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমরা যেখানেই নদী ভাঙনের খবর পাই সেখানেই ছুটে যাই। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা নদী ভাঙ্গন রোধে টেকসই ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন। ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত নদীর তীর রক্ষা বাঁধের কাজ পরিদর্শন করেন প্রতিমন্ত্রী। ক্ষতিগ্রস্ত অংশে জিও ব্যাগ ফেলে নদী ভাঙন ঠেকানোর চেষ্টা করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। নদীর তীর রক্ষা বাঁধেরও যত্ন ও রক্ষার্থে সবাইকে দায়িত্বশীল হতে হবে। বুধবার জামালপুর জেলার ইসলামপু উপজেলার কুলকান্দি যমুনা নদীর ভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা ও বাঁধ পরিদর্শন শেষে নদীর তীরে মতবিনিময়-কালে তিনি এসব কথা বলেন। প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক বলেন; নদীর অব্যাহত ভাঙ্গনে প্রতিদিনই নিঃস্ব হচ্ছেন নদী পাড়ের বাসিন্দারা। তেমনি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে আবাদি জমি, সরকারী-বেসরকারি অসংখ্য স্থাপনা, হাট-বাজার, নদী তীরবর্তী ঘরবাড়ি, মসজিদ ও গাছপালা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে ইতোমধ্যে বিভিন্ন এলাকায় পরিকল্পিতভাবে নদী-রক্ষা প্রকল্পের কাজ শুরু করা হয়েছে। এছাড়া নদী শাসন ও স্থায়ীভাবে ভাঙ্গন প্রতিরোধে বিভিন্ন এলাকায় প্রকল্প গ্রহণ করেও কাজ শুরু করেছে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়। প্রতিমন্ত্রী নদী ভাঙ্গন কবলিত বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের জানান, অপরিকল্পিত ও অবৈধভাবে বালি উত্তোলন বন্ধ করা না হলে নদী ভাঙন রোধ হবে না। নির্ধারিত বালু মহাল ছাড়া অপরিকল্পিত বালি উত্তোলন বন্ধ করতে হবে। নদী ভাঙন প্রতিরোধে প্রতিমন্ত্রী জামালপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা ও বাঁধ নির্মাণে দায়িত্বপ্রাপ্তদের নির্দেশনা দেন। প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক বলেন; প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবসময়ই নদী ভাঙ্গন কবলিতদের পাশে ছিলেন এবং থাকবেন। প্রধানমন্ত্রী নদী ভাঙা ও বন্যা কবলিত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। ভাঙন প্রতিরোধে একদিকে তিনি নদী শাসন ও আরেক দিকে তিনি নদীতে ড্রেজিং করেন। যমুনা নদী এমনভাবে ভাঙছে এতে যমুনার তীরে স্থাপনা, বসতভিটা, ফসলি জমি ও মহাসড়কসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী সারাদেশে যে যে স্থানে ভাঙছে সব জায়গাতেই শক্তিশালী টেকসই বাঁধ দেওয়া নির্দেশ দিয়েছেন। যাতে বাংলাদেশে দুর্যোগ সহনীয় রাষ্ট্রে পরিণত হয়।
পরিদর্শন-কালে মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব(উন্নয়ন) মিজানুর রহমান,বাপা-উবি (পূর্ব রিজিওন) এর অতিরিক্ত মহাপরিচালক মাহবুর রহমান;জেলা প্রশাসক শ্রাবস্তী রায়,বাপাউবি এর জামালপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ আবু সাঈদ উপস্থিত ছিলেন।