কৃষির উন্নয়নে কৃষি অর্থনীতিবিদগণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে:খাদ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ৫, ২০২২ , ১০:৫৩ অপরাহ্ণ

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার, সংগৃহীত চিত্র।

ঢাকা, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন:খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেছেন, কৃষির উন্নয়নে কৃষি অর্থনীতিবিদগণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। কৃষি অর্থনীতিবিদগণ কৃষি প্রযুক্তির ব্যবহার, উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি এবং উৎপাদন ব্যবস্থায় দক্ষতা অর্জনে নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তিনি দেশে নন-হিউম্যান ভোগে যে পরিমাণ খাদ্যশস্য ব্যবহার করা হয় তার একটি হিসাবও নিরূপণ করার পরামর্শ প্রদান করেন। বাংলাদেশ কৃষি অর্থনীতিবিদ সমিতির ২ দিনব্যাপী ১৭তম জাতীয় সম্মেলন ও সেমিনার সোমবার ঢাকায় বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল (বিএআরসি) মিলনায়তনে উদ্বোধন হয়। এবারের জাতীয় সম্মেলনের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় ‘বাংলাদেশে অন্তর্ভুক্তিমূলক ও টেকসই কৃষি উন্নয়ন’। অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার
এসব কথা বলেন। বিশেষ অতিথি পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী বলেন, কৃষিখাতের প্রধান সমস্যা হচ্ছে কৃষিতে স্বল্প বিনিয়োগ। তিনি আরো বলেন, বর্তমানে বাজারে কৃষিপণ্যের দাম স্থিতিশীল রাখার স্বার্থে বাজার ব্যবস্থাপনা নিয়ে গবেষণা হওয়া দরকার। সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার এবং পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন সাবেক সিনিয়র সচিব এবং সম্মেলন ও সেমিনার ব্যবস্থাপনা কমিটির আহ্বায়ক মোঃ মেসবাহুল ইসলাম। বাংলাদেশ কৃষি অর্থনীতিবিদ সমিতির সভাপতি, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স লিমিটেডের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সিনিয়র সচিব সাজ্জাদুল হাসান সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন। প্রধান অতিথি স্পিকার বলেন, কৃষি অর্থনীতিবিদগণ দেশের কৃষি ও কৃষকের উন্নতি, কৃষির প্রবৃদ্ধি এবং টেকসই কৃষিনীতি প্রণয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। তিনি রপ্তানিমুখী কৃষি, কৃষিতে প্রযুক্তির ব্যবহার এবং পরিবেশবান্ধব কৃষিতে অবদান রাখা এবং জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়নে সকলকে ঐক্যবদ্ধ অবদান রাখার আহ্বান জানান। বিশেষ অতিথি সম্মেলনে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান ও সাবেক উপাচার্যগণ, সরকারের সচিবগণ, বিভিন্ন কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষকবৃন্দ, বিভিন্ন দপ্তর, অধিদপ্তরের কর্মকর্তাগণ, স্বনামধন্য অধ্যাপকবৃন্দ, বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তাগণ ও ছয়শতকের অধিক কৃষি অর্থনীতিবিদ উপস্থিত ছিলেন। সেমিনারে ১ম দিনে ২০টি গবেষণা প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হয়।