বাণিজ্যে প্রতিযোগিতার মাধ্যমে পণ্যের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে হবে: বাণিজ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত : আগস্ট ১৬, ২০২২ , ৮:৫২ অপরাহ্ণ

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, সংগৃহীত চিত্র।

রংপুর, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, ব্যবসা-বাণিজ্যে প্রতিযোগিতা নিশ্চিত করে দেশের মানুষের জন্য পণ্যের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে হবে। সরকার এ উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশন গঠন করেছে। প্রতিযোগিতা কমিশনের উদ্দেশ্য এবং সংশ্লিষ্টদের করণীয় সম্পর্কে ব্যাপক প্রচার চালাতে হবে যাতে সবাই জানতে এবং বুঝতে পারেন। মঙ্গলবার রংপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশন আয়োজিত ‘ব্যবসা-বাণিজ্যে সুষ্ঠু প্রতিযোগিতা নিশ্চিতকরণে অংশীজনের ভূমিকা’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মন্ত্রী এসব কথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, একচেটিয়া ব্যবসা করার আর কোনো সুযোগ নেই। কমিশনকে বাজারে নজরদারি বাড়াতে হবে। কোনো পর্যায়ে অনিয়ম হলে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। দেশের মানুষ উপযুক্ত মূল্যে প্রয়োজনীয় পণ্য ক্রয়ের সুযোগ পেলেই বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশন গঠন সার্থক হবে। এ লক্ষ্য পূরণে কমিশনকে জেলা, উপজেলা এবং তৃণমূল পর্যায়ে প্রচার চালাতে হবে।
বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনের চেয়ারপারসন মোঃ মফিজুল ইসলামের সভাপতিত্বে সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কমিশনের সদস্য ড. এ এফ এম মনজুর কাদির, আরো বক্তব্য রাখেন কমিশনের সদস্য (আইন) নাসরিন বেগম। সেমিনারে বিষয়ের ওপর উপস্থাপনা করেন কমিশনের সদস্য জি এম সালাউদ্দিন। সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন রংপুরের বিভাগীয় কমিশনার মোঃ সাবিরুল ইসলাম, বাংলাদেশ পুলিশের রংপুর বিভাগের ডিআইজি মোহা. আবদুল আলীম মাহমুদ, রংপুর মেট্রোপলিটন চেম্বারের প্রেসিডেন্ট মোঃ রেজাউল ইসলাম, রংপুর উইমেন চেম্বারের ভাইস প্রেসিডেন্ট বেগম আখতার জাহান (আর্শি), রংপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধ্বা কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ মোসাদ্দেক হোসেন বাবলু।
এর আগে বাণিজ্যমন্ত্রী রংপুর পৌরসভা আয়োজিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষ্যে ‘রংপুরে বঙ্গবন্ধু’ নামক স্মরণিকার মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বলেন, বঙ্গবন্ধু বাঙালি জাতির স্বাধীনতা এবং অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য সারা জীবন সংগ্রাম করেছেন। সে সময় পাকিস্তান বিরোধী আন্দোলনে রংপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধা শংকু সমজদার শহিদ হন। বঙ্গবন্ধু সাতই মার্চের ভাষণে রংপুরের নাম উচ্চারণ করেছিলেন। ‘রংপুরে বঙ্গবন্ধু’ স্মরণিকাটিতে রংপুরে বঙ্গবন্ধুর অনেক স্মৃতি, অজানা তথ্য উঠে এসেছে। এটি একটি মহতী উদ্যোগ। তিনি বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধে যারা পরাজিত হয়েছিল তারাই বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তোলার জন্য দিন-রাত কাজ করছেন। বাংলাদেশের উন্নয়ন এখন দৃশ্যমান। ২০৪১ সালে উন্নত বাংলাদেশ গড়ে তোলার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের প্রতিশোধ নিতে হবে। পরে মন্ত্রী নিজ উদ্যোগে পীরগাছা উপজেলায় বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের মাঝে হুইল চেয়ার, বাইসাইকেল এবং সেলাই মেশিন বিতরণ করেন। এ সময় পীরগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীগণ উপস্থিত ছিলেন।