স্বেচ্ছায় পদ ছাড়লেন ঝিনাইদহ সরকারি কেসি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি

প্রকাশিত : অক্টোবর ১৩, ২০২২ , ৮:২৪ অপরাহ্ণ

হেলালী ফেরদৌসী, নিজস্ব প্রতিনিধি, ঝিনাইদহ, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: ঝিনাইদহ সরকারী কেশব চন্দ্র মহাবিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের সভাপতি রেজোয়ানুল হক রিপন স্বেচ্ছায় তার পদ থেকে অব্যাহতি নিয়েছেন। বুধবার দুপুরে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ঝিনাইদহ জেলা শাখার প্যাডে এই অব্যাহতি দেন এবং তা তার নিজস্ব ফেসবুক ওয়ালে তুলে ধরেন। তিনি এই অব্যাহতি পত্রে বয়স-সীমা, ব্যক্তিগত কাজ এবং দীর্ঘদিন ধরে পুনাঙ্গ কমিটি না দেওয়ার ব্যর্থতাকে কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছেন। রেজোয়ানুল হক রিপন তার অব্যাহতি পত্রে লেখেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নিজ হাতে গড়া সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, ঝিনাইদহ সরকারি কে.সি কলেজ শাখার সভাপতি পদ থেকে আমি স্বেচ্ছায় অব্যাহতি নিলাম। তিনি আরও বলেন, আমি ও আমার সাধারণ সম্পাদকের বয়স না থাকায় এবং আমার একান্ত ব্যক্তিগত কারণে আমি এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি। রেজোয়ানুল হক রিপন, সভাপতি সরকারি কেসি কলেজ, ঝিনাইদহ, নিবেদক স্বাক্ষরিত এক অব্যাহতি পত্র তার নিজের ফেসবুক ওয়ালে পোস্ট করে তাতে লেখেন, ভালো থাকুক প্রিয় প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। বুধবার দুপুরে এমন একটি পোষ্ট করার সাথে সাথে মুহূর্তের মধ্যে তা বিভিন্ন ফেসবুক পোষ্ট এবং শেয়ারের মাধ্যমে দ্রুত ছড়িয়ে যায়।
অনেকেই তাকে ফেসবুক পোষ্টের মন্তব্যে আগামীর জন্য শুভকামনা জানান। রেজোয়ানুল হক রিপন ফেসবুক পোষ্টে জানায়, তারা দীর্ঘসময় ধরে কমিটির দায়িত্ব পালন করলেও বিভিন্ন রাজনৈতিক জটিলতার কারণে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করা সম্ভব হয়নি। আমি সেই সব কে.সি কলেজ ছাত্রলীগের পদ বঞ্চিত কর্মীদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করছি। এছাড়াও দীর্ঘসময় পাশে থেকে যারা কাঁধে-কাঁধ মিলিয়ে একসাথে কাজ করেছি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি এবং সমস্ত ভুলক্রটির জন্য ক্ষমা চাচ্ছি।
প্রসঙ্গত, তিনি ২০১৩ সালের ২৯ জুলাই মাসে ঝিনাইদহ সরকারী কেশবব চন্দ্র মহাবিদ্যালয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কমিটি ঘোষণা করে। কিন্তু দীর্ঘ প্রায় এক দশক পার হয়ে গেলেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি দেওয়া হয়নি।
এ ব্যাপারে রেজোয়ানুল হক রিপনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, যা বলার তা ফেসবুক পোষ্টের মাধ্যমে দলীয় প্যাডে লেখা আছে। তাছাড়া ব্যক্তিগত কারণে আমি স্বেচ্ছায় অব্যাহতি নিলাম। এব্যাপারে আর কিছু বলতে চায়না।
তবে তিনি বলেন, বিন্দুমাত্র সফলতা থাকলে পদ-বঞ্চিত কর্মীদের জন্য তা উৎসর্গ করছি এবং সকল ব্যর্থতা নিজের কাঁধে তুলে নিয়ে বিদায় নিচ্ছি। ভালো থাকুক আমার প্রাণের সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ।
এব্যাপারে ঝিনাইদহ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সজিবুল ইসলাম সজিব বলেন আমরা একটি সফট কপি পেয়েছি, তিনি দীর্ঘদিন ধরে দায়িত্বে আছেন বয়স শেষ হয়ে গেছে এখন ব্যক্তিগত ব্যস্ততার কারণে অব্যাহতি চাচ্ছেন আমরা বিষয়টি ইতিবাচক ভাবে নিয়েছি।