পার্বত্য অঞ্চলে শান্তি প্রতিষ্ঠা ও উন্নয়নে সরকার দৃঢ় অঙ্গীকারবদ্ধ

প্রকাশিত : জুলাই ১৭, ২০২২ , ১০:৫২ অপরাহ্ণ

ঢাকা, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন:পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং বলেছেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন একটি চলমান প্রক্রিয়া। অনেক প্রতিকূলতা সত্ত্বেও বর্তমান সরকার আন্তরিকভাবে শান্তি চুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছে। সকল পক্ষকে আস্থায় নিয়ে এই চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়নের মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রামে দীর্ঘস্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠা ও পার্বত্যবাসীর জীবনমান উন্নয়নে সরকার দৃঢ় অঙ্গীকারবদ্ধ। রবিবার সচিবালয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ২৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে ‘সমৃদ্ধির সোপানে বাংলাদেশ এবং পার্বত্য অঞ্চলের আর্থসামাজিক উন্নয়ন’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতাকালে তিনি এসব কথা বলেন। সভায় পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মোসাম্মৎ হামিদা বেগম সভাপতিত্ব করেন।
মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহসী ও সুযোগ্য নেতৃত্বে ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর ঐতিহাসিক পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তি স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে এই অঞ্চলের দীর্ঘদিনের রক্তক্ষয়ী সংঘাতের অবসান হয় এবং উন্নয়ন অভিযাত্রা শুরু হয়। যার ফলশ্রুতিতে ১৯৯৮ সালের ১৫ জুলাই সৃষ্টি হয় পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়। সৃষ্টির পর হতে এই পযর্ন্ত এ মন্ত্রণালয় পার্বত্যবাসীর জীবনমান উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। বীর বাহাদুর আরো বলেন, পার্বত্য অঞ্চলে মাত্র তিন শতাংশ চাষযোগ্য সমতলভূমি রয়েছে। সরকার এখানকার অর্থনীতির বিকাশের লক্ষ্যে দারিদ্র্য বিমোচনের মাধ্যমে সকল মানুষের আর্থসামাজিক উন্নয়নকে বিশেষ অগ্রাধিকার দিয়েছে। এই লক্ষ্যে, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও অন্যান্য উন্নয়ন সহযোগী সংস্থাসমূহের সাথে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মসূচি ও কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের দারিদ্র্য বিমোচন, আর্থসামাজিক উন্নয়ন, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি, সামাজিক নিরাপত্তা, মিশ্র ফলজ বাগান ও মসলা চাষ, উদ্বাস্তু পুনর্বাসন, বিদ্যুৎ, যোগাযোগ, অবকাঠামো উন্নয়ন, সক্ষমতা বৃদ্ধি, খেলাধূলা ও সংস্কৃতি চর্চাসহ আর্থসামাজিক অবস্থার উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে সরকার।