ডিজিটাল বাংলাদেশ বিষয়ক ‘বেস্ট রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ড’ প্রদান করলেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত : জুলাই ৩১, ২০২২ , ৫:৩০ অপরাহ্ণ

ঢাকা, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের উদ্যোগে শনিবার রাজধানীর পর্যটন ভবনে বিভিন্ন মিডিয়ার রিপোর্টারদের মাঝে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিষয়ক ‘বেস্ট রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ড’ প্রদান করা হয়। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক প্রধান অতিথি হিসেবে এ পুরস্কার প্রদান করেন। ডিজিটাল বাংলাদেশ নিয়ে প্রতিবেদন প্রচার ও প্রকাশ করায় ২ ক্যাটাগরিতে গণমাধ্যমের ৯ প্রতিবেদককে পুরস্কৃত করা হয়। টেলিভিশন ও রেডিও ক্যাটেগরিতে একাত্তর টেলিভিশনের সিনিয়র রিপোর্টার শেখ রাকিবুল্লাহ হাসান, বাংলাদেশ টেলিভিশনের সিনিয়র রিপোর্টার কুমার বিশ্বজিত রায়, চ্যানেল ২৪ এর স্টাফ রিপোর্টার মুরসালিন হক জুনায়েদ এবং বাংলাদেশ টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার শিহাব হোসাইন। পত্রিকা ও অনলাইন ক্যাটাগরিতে দৈনিক দেশ রূপান্তরের প্রধান প্রতিবেদক উম্মুল ওয়ারা সুইটি, দৈনিক ইত্তেফাকের সিনিয়র রিপোর্টার সমীর কুমার দে মন্ডল, বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার স্টাফ রিপোর্টার সৈয়দ এলতেফাত হোসাইন, ঢাকা পোস্টের জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক আবু সালেহ সায়াদাত এবং দৈনিক সমকালের বিশেষ প্রতিনিধি রাশেদ মেহেদী পুরস্কৃত হয়েছেন। গণমাধ্যম কর্মীদের ৩০০ প্রতিবেদকের প্রতিবেদন মূল্যায়ন করে এই পুরস্কার দেয়া হয়। অনলাইন সংযুক্তিতে আইসিটি বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব এন এম জিয়াউল আলমের সভাপতিত্বে পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিকর্ণ কুমার ঘোষ, স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রীর উপ-প্রেস সচিব হাসান জাহিদ তুষার। আইসিটি প্রতিমন্ত্রী বলেন, ধাপে ধাপে আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন করেছি। এর সুফল দেশের মানুষ পাচ্ছে। তিনি চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে বাংলাদেশের সাংবাদিকরা যেন বিশ্বে নেতৃত্ব দিতে পারেন সেজন্য ডিজিটাল লিডারশীপ ট্রেনিংয়ে তাদের অন্তর্ভুক্ত করার ঘোষণা দেন। পলক বলেন, সংবাদপত্র হচ্ছে সমাজের দর্পণ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের সিদ্ধান্ত গ্রহণের জায়গায় জনগণের মতামত যাতে আরো প্রতিফলিত হয়, সেকারণে ৫৬টি মন্ত্রণালয়কে সম্পৃক্ত করে আগামী দুই-তিন মাসের মধ্যে আইসিটি বিভাগ থেকে অত্যন্ত আধুনিক পোর্টাল চালু করা হবে। যেটির নাম হবে ‘জনতার সরকার পোর্টাল’। তিনি বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের পর এবার আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ২০৪১ সালের মধ্যে বুদ্ধিদীপ্ত, সৃজনশীল, উন্নত, উদ্ভাবনী স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে কাজ শুরু করেছি। আগামী সেপ্টেম্বর নাগাদ ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ বাস্তবায়নের রূপরেখা প্রকাশ করার কথাও তিনি জানান ।