রঙিন খোয়াব দেখে লাভ নেই: বঙ্গবন্ধুকন্যা টানা চতুর্থ মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী হবেন

প্রকাশিত : আগস্ট ১৩, ২০২২ , ১০:৪৫ অপরাহ্ণ

ঢাকা, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: বিএনপির উদ্দেশে পানি সম্পদ উপ-মন্ত্রী পানিসম্পদ উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম বলেছেন, রঙিন খোয়াব দেখে লাভ নেই। দেশের জনগণ পেট্রোলবোমা সন্ত্রাসী ও দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ানদের কখনো ক্ষমতায় বসাবে না। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা টানা চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হবেন। শনিবার রাজধানীর ডেমরায় জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে স্মরণ সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে উপ-মন্ত্রী একথা বলেন। উপ-মন্ত্রী শামীম বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গণতান্ত্রিক চেতনাকে সমুন্নত রাখতে আওয়ামী লীগ অঙ্গীকারবদ্ধ এবং যেকোনো ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে দাঁতভাঙা জবাব দিতে প্রস্তুত। ষড়যন্ত্রের রাজনীতি করতে করতে বিএনপি জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। তারা গণধিকৃত দলে পরিণত হয়েছে। আন্দোলনের ভয় আওয়ামী লীগকে দেখিয়ে লাভ নাই। দীর্ঘ আন্দোলন, লড়াই-সংগ্রামের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ এ অবস্থানে এসেছে। ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য আওয়ামী লীগ সরকারের কারো কাছে ধরনা দেয়ার প্রয়োজন হয় না। প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বিএনপির প্রতি হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, বিএনপি ও তাদের দোসররা রাজপথে আগুন সন্ত্রাস, জ্বালাও-পোড়াও করলে দাঁত ভাঙা জবাব দেওয়া হবে। বিএনপি ও তাদের দোসর স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি দেশের মধ্যে একটা অরাজকতা সৃষ্টি করার পাঁয়তারা করছে। তাই ওয়ার্ড ও থানা আওয়ামী লীগের সকল নেতাকর্মীদের আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগ মুহূর্ত পর্যন্ত সর্তক অবস্থায় থাকতে হবে। তারা যেখানেই নাশকতা করার চেষ্টা করবে, সেখানেই তাদের প্রতিরোধ করতে হবে। ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম খাঁনের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান মোল্লা সজলের পরিচালনায় আরো বক্তব্য রাখেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মিজবাহুর রহমান ভূঁইয়া রতন, শরফুদ্দিন আহমেদ সেন্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম সারোয়ার কবির, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক এফ এম শরিফুল ইসলাম শরিফ, ডিএসসিসির ৬৮ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাহমুদুল হাসান পলিনসহ ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ ও সংশ্লিষ্ট থানা ও ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতাকর্মীরা।