ময়মনসিংহের ৫ উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স উদ্বোধন করেছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২২ , ৭:৩৬ অপরাহ্ণ

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, সংগৃহীত চিত্র।

ময়মনসিংহ, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: ময়মনসিংহের সদর, হালুয়াঘাট, ধোবাউড়া, ঈশ্বরগঞ্জ ও তারাকান্দা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন উদ্বোধন করেছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। সোমবার ময়মনসিংহের সদর উপজেলা থেকে এসব ভবন উদ্বোধন করেন মন্ত্রী। এ উপলক্ষ্যে ময়মনসিংহের সদর উপজেলায় আয়োজিত মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মন্ত্রী বর্তমান সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরেন এবং নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ায় আত্মনিয়োগ করতে আহ্বান জানান। মন্ত্রী আরো বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধারা এখন ন্যূনতম ২০ হাজার টাকা করে ভাতা পাচ্ছেন। এছাড়া অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ৩০ হাজার বীর নিবাস নির্মাণ করে দেওয়া হচ্ছে। বীর মুক্তিযোদ্ধারা বিনামূল্যে হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেন জানিয়ে মোজাম্মেল হক বলেন, জেলা, উপজেলাসহ দেশের বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসা, ওষুধ, টেস্ট যা প্রয়োজন সবই বিনামূল্যে প্রদান করা হচ্ছে। মন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তি এখনো দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। আমরা শপথ নিচ্ছি- সব বীর মুক্তিযোদ্ধাকে ঐক্যবদ্ধ করে তাদের এই ষড়যন্ত্র রুখে দেবো। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে আওয়ামী লীগ সরকারই সবসময় কাজ করেছে এবং করছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, অন্যরা যখন ক্ষমতায় ছিল শুধু লুটপাট করেছে। তিনি বলেন, ‘বিএনপি সরকারের আমলে বিশ্ব দরবারে দেশ ৪ বার দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল, এনেছিল চুরির স্বীকৃতি; আর বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আন্তর্জাতিক উন্নয়ন পদক লাভ করেছেন ২৬টি। ’ তিনি বলেন, ‘বিএনপি দেশকে একটি ব্যর্থ রাষ্ট্র হিসেবে পরিণত করেছিল, রেখে যেতে পারেনি কোনো উন্নয়নের স্বাক্ষর। তাদের দেশের প্রতি কোনো ভালোবাসা ও দায়বদ্ধতা ছিল না। তাই তারা এতিমের টাকাও লুটপাট করেছে। ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ এনামুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সংসদ সদস্য ফকরুল ইমাম ও কাজিম উদ্দিন আহমেদ ধনু, ময়মনসিংহের পুলিশ সুপার মাছুম আহাম্মদ ভূঞা, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট জহিরুল হক খোকাসহ ময়মনসিংহ সদর উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা নেতৃবৃন্দ সরাসরি উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া হালুয়াঘাট, ধোবাউড়া, ঈশ্বরগঞ্জ ও তারাকান্দা উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধারা ভার্চুয়ালি সংযুক্ত ছিলেন।