জয়িতারা সমাজের বাধা পেরিয়ে অনন্য সফলতা সৃষ্টির প্রতীক

প্রকাশিত : নভেম্বর ৯, ২০২২ , ৭:০০ অপরাহ্ণ

খুলনা, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: খুলনা বিভাগের পাঁচজন শ্রেষ্ঠ জয়িতা নির্বাচিত হয়েছে। মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বুধবার খুলনায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে প্রধান অতিথি হিসেবে খুলনা বিভাগের পাঁচজন শ্রেষ্ঠ জয়িতার হাতে সম্মাননা স্মারক, নগদ অর্থ ও সনদ তুলে দেন। খুলনা বিভাগের সম্মাননা প্রাপ্ত শ্রেষ্ঠ পাঁচ জয়িতা হলেন-অর্থনৈতিকভাবে সাফল্য অর্জনকারী নারী ক্যাটাগরিতে যশোর জেলার সালমা ইসলাম, শিক্ষা ও চাকুরি ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জনকারী সাতক্ষীরা জেলার জামিলা খাতুন, সফল জননী ক্যাটাগরীতে নড়াইল জেলার আলেয়া বেগম , নির্যাতনের বিভীষিকা মুছে ফেলে নতুন উদ্যোমে জীবন শুরু করা খুলনা জেলার সন্ধ্যা রানী বিশ্বাস, এবং সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদান রাখায় খুলনা জেলার এ্যাডভোকেট গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকার। প্রধান অতিথির বক্তব্যে মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বলেন, নারীর অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নকে বেগবান করার লক্ষ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১১ সালে জয়িতা কার্যক্রমের সুচনা করেন। জয়িতার কার্যক্রম বিভাগ, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে ছড়িয়ে পড়েছে এবং নারীবান্ধব একটি বিপণন নেটওয়ার্ক গড়ে উঠেছে। জয়িতাকে কেন্দ্র করে তৃণমূল পর্যায়ে নারী উদ্যোক্তাদের মাঝে আত্মবিশ্বাস, উতসাহ ও উদ্দীপনার সৃষ্টি হয়েছে। প্রতিমন্ত্রী ইন্দিরা বলেন, বৈষম্যহীন ও সমতা ভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সরকার জয়িতাদের চিহ্নিত করে তাদেরকে সমাজে প্রতিষ্ঠিত করে তুলতে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। আজকের এ জয়িতা তারই উদাহরণ। তারা বাধা পেরিয়ে সফলতার প্রতীক।
তিনি বলেন, সরকারের নারীবান্ধব উন্নয়ন ও নীতি কৌশল বাস্তবায়নের ফলে গত একযুগে সরকারি, বেসরকারি, আত্মকর্মসংস্থানসহ সকল ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য হারে নারীর অংশগ্রহণ বৃদ্ধি পেয়েছে। এসকল কর্মজীবী নারীদের সন্তানদের সুরক্ষা, শিক্ষা ও পুষ্টি নিশ্চিত করতে শিশু দিবাযত্ন কেন্দ্র আইন প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এ মন্ত্রণালয় বর্তমানে ১১৯টি শিশু দিবাযত্ন কেন্দ্র পরিচালনা করছে। বিভাগ, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে নির্মিতব্য মহিলা কমপ্লেক্স ভবন ও সকল বৃহৎ ও সুউচ্চ সরকারি ভবনে শিশু দিবাযত্ন কেন্দ্র স্থাপন করা হবে। খুলনা জেলায় দশতলা বিশিষ্ট বহুমুখী কমপ্লেক্স নির্মাণ করা হবে। এসময় প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা নারীদের উদ্দেশে বলেন বাংলাদেশে নারীর ক্ষমতায়ন ও উন্নয়ন অব্যাহত রাখার জন্য আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনোনীত প্রার্থীকে বিজয়ী করতে হবে। খুলনা বিভাগীয় কমিশনার মো: জিল্লুর রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো: হাসানুজ্জামান কল্লোল, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ফরিদা পারভীন ও খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হারুনুর রশীদ। আরো উপস্থিত ছিলেন জাতীয় মহিলা সংস্থার নির্বাহী পরিচালক আবেদা আক্তার, খুলনা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান তালুকদার, বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক মো: আজিজুর রহমান, সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক মো: হুমায়ুন কবীর ও যশোর জেলা প্রশাসক মো: তমিজুল ইসলাম খান। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সচিব মো: হাসানুজ্জামান কল্লোল বলেন, আজ নারীদের জয়গান সকল ক্ষেত্রে। সফলতা ও দেশের উন্নয়নের রাজটিকা উড়িয়ে নারীরা এগিয়ে যাছে। অনুভূতি ব্যক্ত করেন পোলিও রোগে আক্রান্ত হয়ে পায়ের হাটার শক্তি হারানো শিক্ষা ও চাকুরি ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জনকারী সাতক্ষীরা জেলার জামিলা খাতুন। তিনি নিজের অদম্য ইচ্ছায় হামাগুড়ি দিয়ে স্কুলে যেয়ে শিক্ষা গ্রহণ করে আজ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়, খুলনা বিভাগ ও জেলা পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ।