আমদানিকৃত কোনো পণ্য মেলায় প্রদর্শন কিংবা বিক্রয় করা যাবে না

প্রকাশিত : নভেম্বর ২২, ২০২২ , ৮:৫১ অপরাহ্ণ

শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার, সংগৃহীত চিত্র।

ঢাকা, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার বলেছেন, শিল্প মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় এবং ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প (এসএমই) ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে আগামী ২৪ নভেম্বর থেকে ৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত ১০ম জাতীয় এসএমই পণ্য মেলা-২০২২ অনুষ্ঠিত হবে। বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে উদ্যোক্তাদের জন্য ৩২৫টি প্রতিষ্ঠানের ৩৫০টি স্টলের ব্যবস্থা থাকবে, মেলায় বিদেশি বা আমদানিকৃত কোনো পণ্য প্রদর্শন কিংবা বিক্রয় করা যাবে না। মঙ্গলবার রাজধানীর আগারগাঁও পর্যটন ভবনে ১০ম জাতীয় এসএমই পণ্য মেলা-২০২২ উপলক্ষ্যে এসএমই ফাউন্ডেশন আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন। প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, জাতীয় শিল্পনীতি-২০২২ অনুযায়ী কৃষি, খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ ও কৃষি যন্ত্রপাতি, আইসিটি, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, হালকা প্রকৌশল, পাট ও পাটজাত, প্লাস্টিক, হস্ত ও কারু শিল্পের সাথে সম্পৃক্ত এসএমই প্রতিষ্ঠানসমূহকে মেলায় অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার প্রদান করা হয়েছে। প্রতিমন্ত্রী বলেন, শতভাগ দেশীয় পণ্যের এই মেলায় দেশীয় উৎপাদনকারী অথবা সেবামূলক ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উদ্যোক্তারাই মেলায় পণ্য প্রদর্শন ও বিক্রয়ের সুযোগ পাবেন। তিনি বলেন, মেলায় অংশগ্রহণকারী উদ্যোক্তাদের মধ্যে ৬০ শতাংশ নারী এবং ৪০ শতাংশ পুরুষ উদ্যোক্তা। মেলায় অংশ নিচ্ছে ফ্যাশন ডিজাইন খাতের সবচেয়ে বেশি ১৩০টি প্রতিষ্ঠান। এছাড়া খাদ্য ও কৃষি প্রক্রিয়াজাতকরণ পণ্যের ৪৫টি, হস্ত ও কারু শিল্পের ৩৮টি, চামড়াজাত পণ্য খাতের ৩৬টি, পাটজাত পণ্যের ৩৫টি, আইসিটি পণ্য-সেবার ৮টি, লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং পণ্যের ৬টি, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স খাতের ৩টি, প্লাস্টিক পণ্যের ৫টি প্রতিষ্ঠান এবারের মেলায় অংশ নিচ্ছে। উপস্থিত সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে কামাল আহমেদ মজুমদার বলেন, গত ৯টি জাতীয় এসএমই পণ্য মেলায় ১ হাজার ৮ শত ৮৬জন উদ্যোক্তা প্রায় ৩৩ কোটি টাকার পণ্য বিক্রয় এবং প্রায় ৫৪ কোটি টাকার অর্ডার গ্রহণ করে। সার্বিক বিবেচনায় উদ্যোক্তাদের ট্রেড লাইসেন্স প্রদানে হয়রানি বন্ধ করতে হবে এবং ঋণ প্রদান সহজীকরণ করতে হবে। সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে এসএমই ফাউন্ডেশনের চেয়ারপার্সন অধ্যাপক ড. মো. মাসুদুর রহমান এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মো. মফিজুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।