এ বছর বেগম রোকেয়া পদক পাচ্ছেন পাঁচ বিশিষ্ট নারী

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ৯, ২০২২ , ১২:২০ পূর্বাহ্ণ

ঢাকা, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: এ বছর বেগম রোকেয়া পদক পাচ্ছেন ৫ বিশিষ্ট নারী। নারী শিক্ষায় বিশেষ অবদান রাখায় বিজয়ী হলেন ফরিদপুর জেলার রহিমা খাতুন, নারী অধিকার প্রতিষ্ঠায় চট্রগ্রাম জেলার প্রফেসর কামরুন নাহার বেগম, নারীর আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে সাতক্ষীরা জেলার ফরিদা ইয়াসমিন (জন্মস্থান খুলনা), সাহিত্য ও সংস্কৃতির মাধ্যমে নারী জাগরণের ক্ষেত্রে নড়াইল জেলার ড. আফরোজা পারভীন, পল্লী উন্নয়নের ক্ষেত্রে ঝিনাইদহ জেলার নাছিমা বেগম। পদক প্রাপ্তদের প্রত্যেককে আঠারো ক্যারেট মানের ৫০০ গ্রাম স্বর্ণ নির্মিত একটি পদক, পদকের রেপ্লিকা, চার লাখ টাকার চেক ও সম্মাননাপত্র প্রদান করা হবে। বৃহস্পতিবার ঢাকায় সচিবালয়ে তথ্য অধিদফতরের সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলা তুননেসা ইন্দিরা এ তথ্য জানান। বেগম রোকেয়া দিবস ও বেগম রোকেয়া পদক ২০২২ উপলক্ষ্যে সর্মসূচির বিস্তারিত জানাতে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। প্রতিমন্ত্রী ইন্দিরা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশনা ও নেতৃত্বে দেশে নারীর ক্ষমতায়নের শুরু। তিনি সংবিধানে নারীর সম-অধিকার, মহান মুক্তিযুদ্ধে নির্যাতিত নারীদের বীরাঙ্গনা সম্মানে ভূষিত, চিকিৎসা ও পূনর্বাসন করেন। তাদের কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেন। তিনি বলেন, বেগম রোকেয়া বাঙালি মুসলিম নারী জাগরণের অগ্রদূত। নারী শিক্ষা, অধিকার এবং নারী আন্দোলনে তার রয়েছে অসাধারণ অবদান। সরকার নারী জাগরণে বেগম রোকেয়া অবদান চিরস্মরণীয় রাখতে এবং নারীদের অনুপ্রাণিত করার উদ্দেশ্যে বেগম রোকেয়া পদক প্রদান করছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামীকাল ৯ ডিসেম্বর সকাল ১০ টায় ঢাকায় ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বেগম রোকেয়া দিবস ও বেগম রোকেয়া পদক প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির আসন অলংকৃত করবেন। সংবাদ সম্মেলনে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. হাসানুজ্জামান কল্লোল, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ফরিদা পারভীন, প্রধান তথ্য কর্মকর্তা মোঃ শাহেনুর মিয়া উপস্থিত ছিলেন। প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বলেন, বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশে নারীর উন্নয়ন, ক্ষমতায়ন ও সমঅধিকার প্রতিষ্ঠায় সময়োপযোগী বিভিন্ন কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন। শিক্ষা, চাকুরি, ব্যবসা ও আত্মকর্মসংস্থানসহ সকল ক্ষেত্রে নারীর আজ সফল অগ্রযাত্রা যা দেশের উন্নয়ন ও অর্থনীতিতে রাখছে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। বেগম রোকেয়া দিবস নারীদের নিকট অন্তহীন প্রেরণার উৎস। বাংলাদেশে নারী সমাজের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন, নারী অধিকার রক্ষা, নারীর ক্ষমতায়ন ও সমতা সৃষ্টির জন্য দিবসটির গুরুত্ব অপরিসীম। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, বেগম রোকেয়া দিবস ২০২২ উপলক্ষ্যে বিশেষ ক্রোড়পত্র ও স্মরণিকা প্রকাশ করা হবে, বেগম রোকেয়া দিবস ও পদক প্রদান উদযাপন অনুষ্ঠানটি বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বাংলাদেশ বেতারে সরাসরি সম্প্রচার করা হবে। বেগম রোকেয়ার জীবনী এবং মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কার্যক্রমের ওপর প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হবে, টেলিভিশন ও রেডিওতে নারীর অধিকার ও সমতা প্রতিষ্ঠায় বিশেষ আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে। নারী শিক্ষা, নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠা ও সচেতনতা বৃদ্ধি করতে ব্যানার, ফেস্টুন, পোস্টারে রাজপথ সর্জিত থাকবে। দেশের সকল জেলা ও উপজেলায় নারী উন্নয়ন, ক্ষমতায়ন, অধিকার এবং এ বিষয়ে প্রচার ও সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে র‍্যালী, সমাবেশ ও আলোচনা অনুষ্ঠানের কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।