হোমিওপ্যাথি অন্যতম চিকিৎসা পদ্ধতি হিসেবে এখনো কার্যকর

প্রকাশিত : জানুয়ারি ৩, ২০২৩ , ৯:১২ অপরাহ্ণ

সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ, সংগৃহীত চিত্র।

‍‍‍‍‍‍‍‍সিরাজগঞ্জ, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেছেন, হোমিওপ্যাথি অন্যতম চিকিৎসা পদ্ধতি হিসেবে এখনো কার্যকর। একে অবহেলা করার সুযোগ নেই। স্বল্প খরচের চিকিৎসা পদ্ধতি হিসেবে হোমিওপ্যাথি গ্রামাঞ্চলে এখনো বেশ জনপ্রিয়। জটিল রোগী যারা অস্ত্রোপচার করতে চান না, তারাও চিকিৎসা পদ্ধতি হিসেবে হোমিওপ্যাথির ওপর নির্ভরশীল। প্রতিমন্ত্রী মঙ্গলবার সিরাজগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমির শহিদ এম মনসুর আলী অডিটোরিয়ামে মোতাহার হোসেন তালুকদার হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের ১ম ও ২য় ব্যাচের চিকিৎসক নিবন্ধন সনদপত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচকের বক্তব্যে এসব কথা বলেন। সিরাজগঞ্জের জেলা প্রশাসক মীর মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক বোর্ডের চেয়ারম্যান ডা. দিলীপ কুমার রায়। সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মোতাহার হোসেন তালুকদার হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের প্রতিষ্ঠাতা ড. জান্নাত আরা তালুকদার হেনরী।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, জার্মান চিকিৎসক স্যামুয়েল হ্যানিম্যান হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা পদ্ধতি আবিষ্কার করেন এবং সেখানে হোমিওপ্যাথির চর্চা বেশি হয়। তিনি বলেন, আমি নিজেও হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা দ্বারা বিশেষভাবে উপকৃত হয়েছি। প্রতিমন্ত্রী এসময় মোতাহার হোসেন তালুকদার হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালকে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত যে কোনো বিষয়ে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন সিরাজগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ বিশ্বাস, সিরাজগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট কে এম হোসেন আলী হাসান, সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ তালুকদার, বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক বোর্ডের প্যানেল চেয়ারম্যান ডা. আশীষ শংকর নিয়োগী, ও সিরাজগঞ্জ চেম্বার অভ্ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি আবু ইউসুফ সূর্য।