বঙ্গবন্ধু বাংলার শান্তি অগ্রগতি ও সাম্যের অবিসংবাদিত নেতা

প্রকাশিত : আগস্ট ১৬, ২০২২ , ৭:১৩ অপরাহ্ণ

মেক্সিকো সিটি, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: যথাযথ মর্যাদা ও ভাব গাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে মেক্সিকো সিটিস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস সোমবার বাঙালি জাতির স্বপ্নদ্রষ্টা এবং মহান স্বাধীনতার রূপকার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন করে। দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের উপস্থিতিতে জাতীয় সংগীতের সাথে রাষ্ট্রদূত জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করেন এবং দূতালয় ভবনে স্থাপিত জাতির পিতার আবক্ষ প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্য দিয়ে দিবসটির কার্যক্রম শুরু হয়। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট শাহাদতবরণকারী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং তাঁর পরিবারের সকল শহিদ সদস্যদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রী প্রদত্ত বাণীসমূহ পাঠ করা হয়। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং শাহাদতবরণকারী তাঁর পরিবারের সকল সদস্যবৃন্দের আত্মার শান্তি কামনা করে এ সময় বিশেষ প্রার্থনা করা হয়। অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় ভাগে মেক্সিকোর Anahuac বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ১৬ জন শিক্ষার্থী জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচিতে অংশ নেয়। এ সময় জাতির পিতার জীবনী ও তাঁর অবদানের ওপর নির্মিত ‘BANGABANDHU IN OUR HEARTS FOREVER’ শীর্ষক একটি তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। পরবর্তিতে, রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলাম জাতির পিতার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। তিনি ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক একটি উপস্থাপনার মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের পূর্বে সুদীর্ঘ আন্দোলন এবং সার্বভৌম ও স্বাধীন বাংলাদেশ অর্জনে বঙ্গবন্ধুর অপরিসীম অবদানের পাশাপাশি যুদ্ধ-বিধ্বস্ত দেশ পুনর্গঠনে তাঁর বিপ্লবী পদক্ষেপসমূহের কথা তুলে ধরেন। তিনি বঙ্গবন্ধুর ‘সোনার বাংলা’র স্বপ্ন এবং জাতির পিতার এই স্বপ্ন বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রীর বিভিন্ন উদ্যোগ বিস্তারিতভাবে তুলে ধরেন। উন্মুক্ত আলোচনা পর্বে শিক্ষার্থীরা বঙ্গবন্ধু, তাঁর রাজনৈতিক জীবন এবং বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের কারণসহ তাঁর অবদান সম্পর্কে আরো অবগত হন।