উৎপাদন বৃদ্ধিতে এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলোর সাথে কাজ করতে চায় বাংলাদেশ

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ৭, ২০২২ , ১০:৫৬ অপরাহ্ণ

শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান, সংগৃহীত চিত্র।

ঢাকা, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান বলেছেন, উৎপাদন বৃদ্ধি, মানসম্পন্ন কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং শ্রমিকদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে বাংলাদেশ এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলোর সাথে কাজ করতে চায়। প্রতিমন্ত্রী বুধবার সিঙ্গাপুরে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা-আইএলও এর ১৭তম এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় আঞ্চলিক সম্মেলনে বক্তৃতায় একথা বলেন। প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকার প্রাতিষ্ঠানিক অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের সকল শ্রমিকের ডাটাবেজ তৈরির কাজ শুরু করেছে, গত জুন থেকে গার্মেন্টস শ্রমিকদের জন্য ইনজুরি স্কিম চালু করা হয়েছে, সার্বজনীন পেনশন চালুর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এদেশের মানুষের আর্থসামাজিক উন্নয়ন ও স্বাধীনতার যে স্বপ্ন দেখেছিলেন তা বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। সরকার শ্রম পরিস্থিতির সার্বিক উন্নয়নে আইএলওসহ উন্নয়ন সহযোগী দেশ-সংস্থা, সামাজিক অংশীদার এবং সংশ্লিষ্ট সকল অংশীজনদের সাথে আরো গুরুত্ব দিয়ে কাজ করবে বলে তিনি জানান। মুন্নুজান সুফিয়ান বলেন, বাংলাদেশ শ্রম আইন সংশোধনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এই সংশোধিত শ্রম আইন অর্থনৈতিক অঞ্চলেও কার্যকর হবে। শ্রমিকদের অধিকার সুরক্ষায় সরকার আরো ৬টি নতুন শ্রম আদালত স্থাপন করেছে। ইপিজেড এলাকায় শ্রমিকদের জন্য শ্রম বিধিমালা কার্যকর করা হয়েছে, হেল্পলাইন চালু করা হয়েছে এবং এ এলাকায় শ্রম পরিদর্শনের মান বৃদ্ধিতে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। ইপিজেড এলাকায় কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের শ্রম পরিদর্শকগণ পরিদর্শন করছেন। আগে তারা ইপিজেড এলাকায় শ্রম পরিদর্শন করতে পারতেন না। সরকার এক লাখ শিশুকে ঝুঁকিপূর্ণ শ্রম থেকে সরিয়ে আনতে ১১২টি এনজিওকে নিযুক্ত করেছে। সরকার ট্রেড ইউনিয়ন রেজিস্ট্রেশন সহজ করেছে। ট্রেড ইউনিয়ন রেজিস্ট্রেশনকে স্বচ্ছ ও জবাবদিহিমূলক করা হয়েছে। বর্তমানে ৯ হাজারেরও বেশি নিবন্ধিত ট্রেড ইউনিয়ন আছে বলে প্রতিমন্ত্রী উল্লেখ করেন। আইএলও’র মহাপরিচালক গিলবার্ট হংবোর সভাপতিত্বে সভায় সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশের হাইকমিশনার মোঃ তাওহিদুল ইসলাম, শ্রম মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব (আইও) মোঃ হুমায়ুন কবির, বাংলাদেশ এমপ্লোয়ার্স ফেডারেশনের সভাপতি আরদাশির কবির এবং জাতীয় শ্রমিক লীগের কার্যকরী সভাপতি আলাউদ্দিন মিয়াসহ সংশ্লিষ্টরা অংশগ্রহণ করেন।