মাত্র ৮ মাসে সংবিধান প্রণয়ন এবং তা কার্যকর করা বঙ্গবন্ধুর একটি বড় সাফল্য

প্রকাশিত : নভেম্বর ৪, ২০২২ , ৮:৩৬ অপরাহ্ণ

গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ, সংগৃহীত চিত্র।

ময়মনসিংহ, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ বলেছেন, মাত্র ৮ মাসে স্বাধীন বাংলাদেশের সংবিধান প্রণয়ন এবং তা কার্যকর করা রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একটি বড় সাফল্য।
শুক্রবার জাতীয় সংবিধান দিবস ২০২২ উদ্‌যাপন উপলক্ষ্যে জেলা প্রশাসন ময়মনসিংহ কর্তৃক জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী একথা বলেন। প্রতিমন্ত্রী বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশের গণপরিষদের প্রথম অধিবেশন বসে ১৯৭২ সালের ১০ এপ্রিল। এপ্রিলের ১১ তারিখ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান প্রণয়নের জন্য গণপরিষদ সদস্য এবং রাজনীতিকদের সমন্বয়ে ৩৪ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করে দেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। কমিটি মাত্র আট মাসে সংবিধানের খসড়া প্রণয়ন করে, যা গণপরিষদে গৃহীত হয় ৪ নভেম্বর এবং সে বছর ১৬ ডিসেম্বর থেকে তা কার্যকর করা হয়। এত স্বল্প সময়ে স্বাধীন বাংলাদেশের সংবিধান প্রণয়ন এবং তা কার্যকর করা রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একটি বড় সাফল্য। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে একটি বিশেষ রাজনৈতিক দল নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি জানিয়ে আসছে উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কোনো অস্তিত্ব আমাদের মহান সংবিধানে বর্তমানে নেই এবং ১৯৭২ সালের ১৬ ডিসেম্বর থেকে কার্যকর হওয়া সংবিধানেও ছিল না। যারা এ দাবি উত্থাপন করছে এবং সমর্থন করছে তারা আমাদের মহান সংবিধানের পবিত্রতা রক্ষায় বিশ্বাসী নয়। তারা দেশের মানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলনস্বরূপ মহান সংবিধানের অপমৃত্যু কামনা করে এবং এদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের প্রতি তারা শ্রদ্ধাশীল নয়। তাদের শুভ বুদ্ধির উদয় হওয়া উচিত এবং দেশে গণতান্ত্রিক শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য এই দাবি থেকে তাদের সরে আসা উচিত। এসময় প্রতিমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী সবাইকে মিতব্যয়ী হওয়ার পরামর্শ দেন। অনুষ্ঠানে ময়মনসিংহ বিভাগ ও জেলা পর্যায়ের সকল সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী উপস্থিত ছিলেন।