আর্ন্তজাতিক কাস্টমস দিবসে প্রধানমন্ত্রীর বাণী

প্রকাশিত : জানুয়ারি ২৫, ২০২৩ , ৫:০৮ অপরাহ্ণ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, সংগৃহীত চিত্র।

ঢাকা, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারি ‘আর্ন্তজাতিক কাস্টমস দিবস’ উপলক্ষ্যে নিম্নোক্ত বাণী প্রদান করেছে :
“অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের উদ্যোগে ২৬ জানুয়ারি ‘আর্ন্তজাতিক কাস্টমস দিবস’ পালিত হচ্ছে জেনে আমি আনন্দিত। এ উপলক্ষ্যে আমি বাংলাদেশ কাস্টমসের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী ও সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিবাদন জানাচ্ছি। ‘আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস ২০২৩’এর মূল প্রতিপাদ্য ‘Nurturing the next generation: promoting a culture of knowledge-sharing and professional pride in Customs’ (ভবিষ্যৎ প্রজন্মে লালন: কাস্টমসে জ্ঞানচর্চা ও উত্তম পেশাদারিত্বের বিকাশ)-সময়োপযোগী হয়েছে বলে আমি মনে করি। আমি বিশ্বাস করি, দিবসটি পালনের মাধ্যমে বাংলাদেশ কাস্টমসে জ্ঞান চর্চার সংস্কৃতি এবং পেশাগত উৎকর্ষতা সৃষ্টি হবে। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশ স্বাধীন হওয়ার পর পরই দেশের অর্থনীতিকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে অভ্যন্তরীণ ব্যবসা-বাণিজ্য, শিল্পায়ন এবং আন্তর্জাতিক বাণিজ্য বৃদ্ধি ওপর গুরুত্বারোপ করেন। তিনি জাতীয় রাজস্ব বোর্ড গঠন করেন, যার ফলে দেশে রাজস্ব আদায়ের বহুমুখী খাত তৈরি হয় এবং সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়। জাতির পিতার সুদূরপ্রসারী দর্শন, যোগ্য নেতৃত্ব ও নিখুঁত কর্মপরিকল্পনার ফলে মাত্র সাড়ে তিন বছরের মধ্যে যুদ্ধবিধ্বস্ত একটি দেশ খাদ্য উৎপাদন, ব্যবসা-বাণিজ্য প্রসারসহ বিভিন্ন সূচকে স্বল্পোনত দেশে পরিণত হয়। আওয়ামী লীগ ২০০৯ সাল থেকে একাধারে তিন বার সরকার গঠন করে ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত বৈষম্যহীন রাষ্ট্র ব্যবস্থা গড়ার প্রত্যয়ে এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক ও টেকসই অর্থনৈতিক উন্নয়নের লক্ষ্যে বিম্ব অর্থনীতির এই সংকটময় মুহুর্তেও দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণে সফল হয়েছে। বাংলাদেশ এখন আর্থসামাজিক উন্নয়নে ‘রোল মডেল’। পদ্মা সেতুর স্বপ্ন জয়ের পর আরেকটি স্বপ্ন জয় করে মেট্রোর যুগে প্রবেশ করেছে দেশ। রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র, রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র, এলএনজি টার্মিনাল ও গ্যাস পাইপলাইন প্রকল্প, মাতারবাড়ী বিদ্যুৎ কেন্দ্র, পায়রা গভীর সমুদ্র বন্দর, বঙ্গবন্ধু টানেলসহ বিভিন্ন মেগা প্রকল্পের কাজ এগিয়ে চলেছে। এসব প্রকল্প বাস্বয়নের অক্সিজেন হলো রাজস্ব। ন্যায়ানুগভাবে রাজস্ব আহরণ করার লক্ষ্যে আধুনিক রাজস্বনীতি প্রণয়ন, ডিজিটাল কাস্টমস সেবা, উন্নত তথ্য ভান্ডার নির্মাণ, ওয়ানস্টপ সার্ভিস প্রদানসহ জ্ঞানচর্চার সংস্কৃতি এবং উত্তম পেশাদারিত্বের নানা ধরনের উদ্যোগ বাংলাদেশ কাস্টমস গ্রহণ করেছে। আমি আশা করি, বাংলাদেশ কাস্টমস এর সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীর ঐকান্তিক প্রচেষ্টা, পেশাগত দক্ষতা, ডিজিটাল ব্যবস্থাপনা ও যৌক্তিক সংস্কার বাস্তবায়নের মাধ্যমে অভ্যন্তরীণ রাজস্ব আদায় বৃদ্ধি, মজবুত অর্থনীতির ভিত গঠন, অপবাণিজ্য রোধ, জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদে অর্থায়ন প্রতিরোধ, অর্থপাচার প্রতিরোধসহ রাজস্ব প্রশাসনে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত হবে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের স্বপ্নের ‘সোনার বাংলাদেশ’ গড়তে রাজস্ব প্রশাসনের রাজস্ব সৈনিকদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টাকে আমি সাধুবাদ জানাই। এসব কার্যক্রমের ধারাবাহিকতায় ‘ভিশন ২০৪১’ বাস্তবায়নের মাধ্যমে আমরা ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ গড়ে তুলতে সক্ষম হবো, ইনশাআল্লাহ।
আমি ‘আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস ২০২৩’ এর সার্বিক সাফল্য কামনা করছি।
জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু
বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।”