নওগাঁর পত্নীতলায় শত্রুতার বলি ৩৫০টি আম গাছ

প্রকাশিত : জুন ১৪, ২০২২ , ৬:৫৮ অপরাহ্ণ

আলহাজ্ব মোঃ সামসুর রহমান চৌধুরী (বুলবুল চৌধুরী), নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন:নওগাঁর পত্নীতলায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে একটি আম বাগানের লক্ষাধিক টাকা মূল্যের প্রায় সাড়ে তিনশ আম গাছ কেটে ফেলেছে দুর্বৃত্তরা। ঘটনাটি সোমবার গভীর রাতে পত্নীতলা উপজেলার শিহাড়া ইউপির লক্ষনপুর গ্রামে ঘটেছে। এ-ঘটনায় থানায় একটি অভিযোগ হয়েছে। অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ধামইরহাট উপজেলার মাহমুদপুর (তালপুকুর) গ্রামের মৃত হাফিজ উদ্দীনের ছেলে আজহারুল ইসলাম (৫৪)র সাথে একই এলাকার লুৎফর রহমানের ছেলে মোরসালিন হোসেন (৩৪) ও খেড়শুকনা গ্রামের আলিমুদ্দীনের ছেলে আব্দুল মতিন (৩৮) এর সাথে পূর্ব থেকেই জমিজমা বিষয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এরই এক পর্যায়ে গত প্রায় এক মাস পূর্বে আজহারুল ইসলামের পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া পত্নীতলা উপজেলার শিহাড়া ইউপির লক্ষনপুর গ্রামের জমিতে দীর্ঘদিন যাবত আমের বাগান করে শান্তিপূর্ণ ভাবে ভোগ দখলকৃত জমিতে মোরসালিন হোসেন ও আব্দুল মতিন সহ তাদের লোকজন বাঁশের খুঁটি পুঁতে ঐ জমি দখলের চেষ্টা করে। বিষয়টি জানতে পেরে আজহারুল সহ তার লোকজন তাতে বাধা দিলে মোরসালিন ও মতিনরা ক্ষিপ্ত হয়ে জানায় ভবিষ্যতে সুযোগ পেলে ঐ জমিতে থাকা সমস্ত আম গাছ কেটে ফেলবে। এমতাবস্থায় গত রবিবার রাত আনুঃ সাড়ে ৮টায় মোরসালিন, মতিন সহ তাদের সাথে থাকা লোকজন দা, কুড়াল, বাঁশের লাঠি নিয়ে উক্ত জমিতে অনধিকার প্রবেশ করে সেখানে প্রায় সাড়ে ৩শ আমের গাছ কাটতে থাকে। এসময় স্থানীয় আজহারুলের লোকজন গাছ কাটতে দেখে কেন কাটছে তা জিজ্ঞেস করলে মোরসালিন, মতিন সহ তাদের সাথে থাকা লোকজন ঐ ব্যক্তিদের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে মারমুখী হয়। পরে খবর পেয়ে আজহারুল সহ অন্যান্য গ্রামের লোকজন উক্ত জমিতে গেলে দেখতে পায় যে, জমিতে লাগানো প্রায় সাড়ে ৩শ আমের গাছ তারা কেটে জমিতে ফেলে রেখে পালিয়ে গেছে। এব্যাপারে বাগানের মালিক আজহারুল ইসলাম জানায় মোরসালিন, মতিনের সাথে তার দীর্ঘদিনের বিরোধ চলে আসছিল। সেই কারনেই তারা তার জমিতে লাগানো আমের গাছ গুলো কেটে তার ক্ষতি সাধনের চেষ্টা করেছে। এ বিষয়ে আজহারুল ইসলাম পত্নীতলা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে। উপরোক্ত বিষয়ে পত্নীতলা থানার অফিসার ইনচার্জ শামসুল আলম শাহ্ এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে, তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।