ছাগল নিয়ে পালানোর সময় জনতার হাতে গণধোলাই

প্রকাশিত : অক্টোবর ৩, ২০২২ , ৯:২১ অপরাহ্ণ

বিধান দাস, নিজস্ব প্রতিনিধি, ঠাকুরগাঁও, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈলে মোটরসাইকেলে ছাগল চুরি করে পালানোর সময় এক সরকার দলীয় এক নেতাসহ দুজনকে গণপিটুনি দিয়েছে জনতা। এ সময় তাদের কাছ থেকে একটি ছাগল ও মোটরসাইকেল জব্দ করেছে উপস্থিত বিক্ষুব্ধ জনতা। রবিবার (২ অক্টোবর) দুপুরে জেলার রানীশংকৈল উপজেলার নেকমরদ বাজারে এ ঘটনা ঘটে। তবে গণপিটুনি দেওয়ার একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। উপজেলার মহেশপুর গ্রামের চুরি যাওয়া ছাগলের মালিক লোকমান বলেন, ‘ঘাস খাওয়ার জন্য বাড়ির পাশের আম বাগানের রাস্তায় ছাগলটিকে বেঁধে রাখি। হঠাৎ করে একটি মোটরসাইকেল থেকে একজন লোক নেমে আমার ছাগলটিকে গাড়িতে উঠিয়ে নিয়ে যাচ্ছিল। এ সময় আমরা ধাওয়া করি এবং পথিমধ্যে নেকমরদ বাজারে দুজনকে ধরে ফেলে। জেলা আওয়ামীলীগের একাধিক নেতা বলেন, ‘ছাগল চুরির ঘটনা শুনেছি। যদি এ ঘটনা সত্য হয় তাহলে আমরা তাঁর বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেব।’ অভিযুক্ত ব্যক্তির নাম হাবীবুল্লাহ হাবীব। তিনি নিজেকে জেলার পীরগঞ্জ পৌর আওয়ামী যুবলীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক হিসেবে পরিচয় দিয়েছিলেন। অপর জনের নাম মিরাজুল ইসলাম। তারও বাড়ি পীরগঞ্জ উপজেলার তাজপুর গ্রামে। ছাগল মালিকের মেয়ে সুমাইয়া জানান, মহেশপুরের একটি আম বাগান থেকে তাদের একটি খাসি ছাগল মোটরসাইকেলে তুলে নিয়ে পালিয়ে যাচ্ছিল ওই দুই যুবক। এ সময় প্রতিবেশীর এক ভাইসহ তিনি মোটরসাইকেলে করে পেছন থেকে তাদের ধাওয়া করেন এবং নেকমরদ বাজার এলাকায় তাদের ধরে ফেলেন। পরে জনতা তাদের গণপিটুনি দেয়।গণপিটুনি শেষে দু’জনের কান ধরে উঠবস করানো হয়। এ বিষয়ে পীরগঞ্জ পৌর আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহজালাল বাবু বলেন, হাবীব ধর্মবিষয়ক সম্পাদক নয়। সাধারণ সদস্য। এ ঘটনার জন্য তাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হবে।