মানবিক জন বান্ধব ও নিষ্ঠাবান সফল উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডঃ আব্দুর রশিদ

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ২১, ২০২২ , ৬:২৩ অপরাহ্ণ

হেলালী ফেরদৌসী, ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধি, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: প্রতিটি মানুষের স্বপ্ন থাকে। কিন্তু স্বপ্নের পথে পা বাড়ালেই একের পর এক আসতে থাকে প্রতিবন্ধকতা। যে ব্যক্তি এসব প্রতিবন্ধকতা টপকে এগিয়ে যাবেন তিনিই হবেন সফল। আজ এমনই একজন সমাজ সেবক নিয়ে কথা বলব। যিনি অনেক বাধা ও প্রতিবন্ধকতা টপকে একজন সফল ব্যক্তি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত। তিনি আর কেউ নন , তিনি হলেন সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ইতিহাসের একজন সৎ নিষ্ঠাবান ও সফল ও জনপ্রিয় উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডঃ আব্দুর রশিদ। সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাড. মোঃ আব্দুর রশিদ জন-নেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়ন কাজ করছেন বলেই তিনি একজন সফল চেয়ারম্যান।তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা,শিক্ষক,হেডমাস্টার এবং অ্যাডভোকেট থেকে সফল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান।ছাত্ররাজনীতি থেকে ছাত্রলীগ দিয়ে তার রাজনীতির পথচলা শুরু থেকে আজ জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য।ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামীলীগের এবারের সম্মেলনে সভাপতি পদপ্রার্থী তিনি। উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার আগে তিনি ছিলেন ঝিনাইদহ নারী ও শিশু আদালতের বিজ্ঞ পিপি। উপজেলাকে উন্নয়ন ও পরিবর্তনের লক্ষে ২০১৯ সালের ২৪মার্চ নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিপুল ভোটে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।তিনি উপজেলা চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করার পাশাপাশি বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যেমন আঃ রউফ কলেজ, ফজর আলী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজ, বেড়বাড়ী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কেএমএইচ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসার সভাপতি এবং ঝিনাইদহের বৃহৎ সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন মরমী সাধক পাগলাকানাই স্মৃতি সংসদের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে আসছেন। বয়স ৭৩ বছর পার হয়ে গেলেও কর্মদক্ষতা দিয়ে তিনি টিকে আছেন সকল বয়সী মানুষের হৃদয়ে। তিনি দায়িত্ব পাওয়ার পরপরই উপজেলার কৃষি খাত, শিল্প খাত, পানি সরবরাহ, শিক্ষা, মানব সম্পদ উন্নয়ন, কুঠির শিল্প, হাট বাজারের উন্নয়ন, স্বাস্থ্য খাত, সামাজিক নিরাপত্তা, সামাজিক অবকাঠামো উন্নয়ন, পরিবহন ও যোগাযোগ খাত এবং ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক খাতের ব্যাপক উন্নয়ন সাধন করেন। এ্যাড. আব্দুর রশীদ ১৯৪৯ সালের ১অক্টোবর উপজেলার বেড়বাড়ী গ্রামে সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন, পিতা মৃত আহম্মদ আলী বিশ্বাস। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএ এলএলবি ডিগ্রি অর্জন করে আইন পেশায় নিযুক্ত হন। ছাত্র থেকেই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের রাজনীতি সঙ্গে সম্পৃক্ত। তিনি ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতির মাঠে আছেন, সদর উপজেলার সকল শ্রেণি পেশার মানুষের ভালবাসায় আজ সফল একজন উপজেলা চেয়ারম্যান।এলাকার গরীব দুঃখী মানুষের পাশে থেকে তিনি সব সময় সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। সর্বোপরি গরীব মেহনতি মানুষের প্রকৃত জন-দরদী হিসেবে তিনি এলাকায় ব্যাপক পরিচিত ও জনপ্রিয়তা লাভ করেছেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পারিবারিক ঐতিহ্য অনুযায়ী ছোট বেলা থেকেই একজন সহজ-সরল-সৎ মনের অধিকারী ও মেধাবী মানুষ। যার ফলে উপজেলা-বাসী তাকে বিপুল ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত করেছেন। চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে উপজেলার সর্বস্তরে উন্নয়ন করে যাচ্ছেন। সামাজিক সচেতনতা এবং মানবিক সেবার অনন্য উদ্যোগ তাকে একজন মানব-দরদী ও মহতী মানুষের উচ্চতায় অধিষ্ঠিত করেছে।তিনি এ পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন রাস্তার উন্নয়ন, স্কুল, মাদ্রাসা, মসজিদ, শ্মশান,কবরস্থান, সহ সদর উপজেলার ১৭টি ইউনিয়নের প্রত্যন্ত এলাকায় উন্নয়ন সংস্কার কওে চলেছেন এবং গরীব দু:খী মানুষের মাঝে বয়স্ক-ভাতা, বিধবা-ভাতা সঠিকভাবে বিতরণ করেছেন এবং বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করে উপজেলার বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করে যাচ্ছেন। সদর উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নের নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের জয়লাভের জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন তিনি। মোঃ আব্দুর রশিদ জন-নেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়ন কাজ করেছেন বলেই তিনি আজ একজন উপজেলা পরিষদের সফল চেয়ারম্যান। মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক আদর্শ বাস্তবায়নে, দলীয় সভানেত্রী, জন-নেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে চলমান উন্নয়ন কর্মকাণ্ডকে এগিয়ে নিতে এবং উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে ভিশন ২১ ও ৪১ তৃণমূলে বাস্তবায়নে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ রাশিদুর রহমান (রাসেল) এবং উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আরতী দত্তকে সাথে নিয়ে একজন ক্ষুদ্র অংশীদার হয়ে সক্রিয়ভাবে জড়িত থেকে কাজ করে চলেছেন। অ্যাড.আবদুর রশিদ জনপ্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি শিক্ষা ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃত্ব ও বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন এবং করে আসছেন। অ্যাডঃ আব্দুর রশিদ সদর উপজেলার সাধারণ মানুষের প্রত্যাশা পূরণে নিরর কাজ করে যাচ্ছেন। তারপরও মানুষের প্রত্যাশা থাকে। তিনি তাঁর পরিশ্রম, সাহস, ইচ্ছাশক্তি, একাগ্রতা আর প্রতিভার সমন্বয়ে উপজেলার সাধারণ মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন কর্মকাণ্ড সঠিক ও সুচারু ভাবে বাস্তবায়নের জন্য, সর্বোপরি শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশের যে স্বপ্ন রয়েছে সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য এবং আগামী ২০২৪ সালে অনুষ্ঠিত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের জয়লাভের জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডঃ আব্দুর রশিদ এ কাজে সফলও হয়েছেন। সকলের সহযোগিতা পাচ্ছেন। উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে সফলতা পাওয়ায় তিনি আজ সদর উপজেলার সর্বত্র সম্মানিত হচ্ছেন। প্রবীণ রাজনীতিবিদ এ ব্যক্তি তাঁর বয়স ও অভিজ্ঞতা দুটিকেই হার মানিয়েছেন। তাঁর কর্মকাণ্ডে মনে হয় তিনি প্রবীণ নয়। তিনি অনেক তরুণ ও নবীন। তার অভিজ্ঞতা অনেক। এসকল সফল মানুষের পেছনে আছে কিছু গল্প, তা অনেকটা রূপকথার মতো। আর সে সব গল্প থেকে মানুষ খুঁজে নেয় স্বপ্ন দেখার সম্বল, এগিয়ে যাওয়ার জন্য নতুন প্রেরণা। কথা বলছিলাম ঝিনাইদহ সদর উপজেলা পরিষদের সফল চেয়ারম্যান অ্যাডঃ আব্দুর রশিদের (৭০) সম্পর্কে। ঝিনাইদহ সদর উপজেলা পরিষদের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই উপজেলায় অ্যাডঃ আব্দুর রশিদ তথা আওয়ামীলীগের নেতৃত্বে উল্লেখযোগ্য উন্নয়নে অগ্রণী ভূমিকা রেখে সাধারণ মানুষের আস্থা অর্জনে সক্ষম হয়েছেন । এলাকার হত-দরিদ্র মানুষের উন্নয়নে তাঁর নিরন্তর প্রয়াস সব মহলেই প্রশংসা কুড়িয়েছে। রাস্তা ঘাটের উন্নয়ন, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য সেবায় বিশেষ অবদান, সামাজিক উন্নয়নসহ বিভিন্ন প্রকল্পের বাস্তবায়নে দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিয়ে সদর উপজেলা এলাকায় নিজের মুখ উজ্জ্বল করেছেন। করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভাপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার মুখ উজ্জ্বল। তার সাথে জেলা আওয়ামীলীগ এবং সদর উপজেলা আওয়ামীলীগেরও ভাবমূর্তির উন্নয়ন হয়েছে। ঝিনাইদহ সদর উপজেলার আলোকিত মুখ হিসাবে পরিচিত এ মানুষটি নিজের সাফল্যের কারনে বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ কর্তৃক নানা ভাবে প্রশংসিতও হয়েছেন। অসংখ্য মসজিদ,মাদ্রাসা, স্কুল-কলেজ, এতিমখানাসহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের অন্যতম পৃষ্ঠপোষক সমাজসেবী সদর উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডঃ আব্দুর রশিদ। ব্যক্তি জীবনে তিনি অত্যন্ত নম্র, ভদ্র, সদাহাস্যোজ্জ্বল ও সাদা মনের মানুষ। তাঁর মাঝে কোন অহংকার নেই। নিরহংকারী এই মানুষটি দলমত নির্বিশেষে আজ সকলের কাছে প্রিয়। গত উপজেলা নির্বাচনের সময় নবীন আ’লীগ নেতাকে পেছনে ফেলে তিনি নির্বাচিত হয়েছেন বিপুল ভোটে। ঝিনাইদহ সদর-২ আসনের সংসদ সদস্য তাহজীব আলম সিদ্দিকী সমি অ্যাডঃ আব্দুর রশিদের কর্মকাণ্ডে তুষ্ট হয়ে তার জন্য কাজ করেছেন নির্বাচনের মাঠে । তাহজীব আলম সিদ্দিকী সমি এমপি’র সেই আস্থার প্রতিদানও দিচ্ছেন তিনি। কাজ করে যাচ্ছেন, দলের জন্য। কাজ করছেন সমি এমপি’র জন্য। সর্বোপরি কাজ করছেন সাধারণ মানুষের জন্য। বয়সে প্রবীণ হলেও তিনি মনোবল হারাননি। এই সফল মানুষটি দলীয় নেতাকর্মী থেকে শুরু করে প্রতিটি মানুষের বিপদ আপদে ছুটে যান। এলাকায় তিনি একজন সাদা মনের উদার মানসিকতার ও দানশীল মানুষ হিসেবে ইতিমধ্যে পরিচিতি লাভ করেছেন। ঝিনাইদহের সাধারণ মানুষের মতে, আমরা নেতা বা উপজেলা চেয়ারম্যান বুঝিনা। অ্যাডঃ আব্দুর রশিদ একজন ভাল মানুষ। তিনি একজন কর্মঠ মানুষ। তিনি উপজেলা চেয়ারম্যান পদে বার বার থাকলে আমাদের উপকার হবে। আমাদের দু:খ দুর্দশায় তাঁকে সহজেই পাশে পাওয়া যায়। একান্ত আলাপচারিতায় উপজেলা চেয়ারম্যান ও ঝিনাইদহ সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অ্যাডঃ আব্দুর রশিদ এই প্রতিবেদককে বলেন, আমি আমার নেতা জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই এমপি ও ঝিনাইদহ সদর-২ আসনের সংসদ সদস্য তাহজীব আলম সিদ্দিকী সমি’র সহযোগিতা নিয়ে তাদের ভাগ্য উন্নয়নে সবসময় পাশে ছিলাম। ভবিষ্যতেও আমার এবং আমাদের প্রিয় অভিভাবক বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভাপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এমপি’র নির্দেশে তাঁর উন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিচালনায় প্রয়োজনে জীবন উৎসর্গ করব। পাশাপাশি সাধারণ মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে নিজেকে সপে দিব। আওয়ামী লীগের চরম দুঃসময়ে বিএনপি জামায়াত জোট সরকারের সময়ে দলের দুর্দিনে সংগঠনকে সুসংগঠিত করা জোট সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে হামলা, মামলা নির্যাতনের শিকার হয়েছি। তবু কখনো পিছুপা হননি। নানা প্রতিকূলতার মধ্যদিয়ে আমি মানুষের সেবা করে যাচ্ছি। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আরও বলেন, সদর উপজেলা বাসির উন্নয়নের লক্ষ্যেই বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নিয়ে কাজ করছি। স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করে ঝিনাইদহের মধ্যে সদর উপজেলা পরিষদকে একটি আদর্শ ও মডেল উপজেলায় রূপান্তরিত করতে কাজ করছি। এ উপজেলায় থাকবে না কোন বাল্যবিবাহ, ইভটিজিং, মাদক জুয়া এমনকি জঙ্গিবাদ। উপজেলাটিতে শিক্ষা ব্যবস্থা, স্বাস্থ্যসেবা থেকে শুরু করে সরকার ঘোষিত সকল প্রকার সুবিধাদি পাচ্ছেন উপজেলায় বসবাস-কৃত সর্বসাধারণ। আমি সবসময় উপজেলা-বাসীর কল্যাণে ও উন্নয়নে কাজ করতে চাই। সবার সহযোগিতা নিয়ে ঝিনাইদহ সদর উপজেলাকে একটি মডেল উপজেলা হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। সৃষ্টিকর্তা আমাকে এ তৌফিক দান করুন। পাশাপাশি তিনি অতিথের মত উপজেলার উন্নয়নে সকলের দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করেন সফল এ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডঃ আব্দুর রশিদ।