এমএসএমই দিবসে রাষ্ট্রপতির বাণী

প্রকাশিত : জুন ২৬, ২০২২ , ৫:৩২ অপরাহ্ণ

রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ, সংগৃহীত চিত্র।

ঢাকা, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ সোমবার ২৭ জুন এমএসএমই দিবস উপলক্ষ্যে নিম্নোক্ত বাণী প্রদান করেছেন :
“ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প ফাউন্ডেশন (এসএমই ফাউন্ডেশন) কর্তৃক ‘এমএসএমই দিবস’ পালনের উদ্যোগকে আমি স্বাগত জানাই।
বাংলাদেশ সরকার ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট (এসডিজি) অর্জন ও রূপকল্প ২০৪১ এর সফল বাস্তবায়নের লক্ষ্যে শ্রমঘন ও স্বল্প পুঁজির মাইক্রো, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উন্নয়নে পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। এ লক্ষ্যে ‘এসএমই নীতিমালা ২০১৯’ অনুমোদন করা হয়েছে এবং ২০২৪ সাল নাগাদ জাতীয় প্রবৃদ্ধিতে এসএমই খাতের অবদান ২৫% থেকে ৩২% এ উন্নীত করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। সরকারের ব্যাপক উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়নের ফলে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ ইতোমধ্যে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হয়েছে। আমি আশা করি, এ অর্জনকে টেকসই রূপ দিতে এবং উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ পরবর্তী বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় দেশের এসএমই খাত উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখতে সক্ষম হবে। দেশের সর্বস্তরের মানুষের অংশগ্রহণের মাধ্যমে অন্তর্ভুক্তিমূলক টেকসই অর্থনীতি গড়তে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের কোনো বিকল্প নেই। তাই এসএমই উদ্যোক্তাদের জন্য ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ গড়ে তুলতে সরকার বদ্ধপরিকর। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় বর্তমানে তৃণমূল পর্যায়েও ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প গড়ে উঠছে যেখানে নারী উদ্যোক্তারাও বিনিয়োগে স্বতঃস্ফূর্তভাবে এগিয়ে আসছে। এসএমই খাতের টেকসই উন্নয়নে পণ্যের গুণগতমান ও দেশে-বিদেশে এসব পণ্যের বিপণন নিশ্চিত করা খুবই জরুরি। আমি আশা করি, এসএমই ফাউন্ডেশন দেশে টেকসই শিল্পায়নের প্রসার ও নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টিতে নিরলস প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবে।
আমি ‘এমএসএমই দিবস’ উপলক্ষ্যে গৃহীত সকল কর্মসূচির সফলতা কামনা করছি।
জয় বাংলা।
খোদা হাফেজ, বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।”