মাছের উৎপাদন বৃদ্ধিতে বিজ্ঞানীদের অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে

প্রকাশিত : জুলাই ৩১, ২০২২ , ৫:১৩ অপরাহ্ণ

ময়মনসিংহ ব্যুরো, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: ২০৪১ সালের দেশে মাছের উৎপাদন ৯০ লাখ মেট্রিক টনে উন্নীত করতে হলে মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীদের অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে বলে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহের সমাপনী দিবসে বক্তারা এমন আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তাঁরা বলেন, ইতোমধ্যে বিজ্ঞানীরা বিলুপ্তপ্রায় ৩৬ প্রজাতি মাছের কৃত্রিম প্রজননে সফলতা অর্জন করেছে। অচিরেই আরো কয়েকটি হারিয়ে যাওয়া মাছের কৃত্রিম প্রজননে সক্ষম হবে মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট। শনিবার (৩০ জুলাই) বিকেলে বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিএফআরআই) মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহের সমাপনী দিবসে বক্তারা এমন আশাবাদ ব্যক্ত করেন। বিএফআরআই মহাপরিচালক ড. ইয়াহিয়া মাহমুদের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বাবু এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ইকরামুল হক টিটু ও বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের মৎস্য অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. মোঃ আবুল মুনসুর। এসময় বক্তব্য রাখেন বিএফআরআই’র পরিচালক ড. খলিলুর রহমান, মোকাদ্দেসুর রহমান মুকুল ও নিতিশ পণ্ডিত। এ অনুষ্ঠানে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. অনুরাধা ভদ্র। আর এই অনুষ্ঠানের মেলায় পুরস্কারপ্রাপ্তদের হাতে ক্রেস্ট ও সনদ তুলে দেয়া হয়। এর আগে মৎস্য খামারিদের হাতে হারিয়ে যাওয়া মাছের জার্মপ্লাজম হস্তান্তর করেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্বদ্যালয়ের শিক্ষক, মৎস্য বিজ্ঞানী, খামারিসহ প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকগণ উপস্থিত ছিলেন।