গ্রীষ্মকালীন টমেটো চাষে সকল সহযোগিতা দেয়া হবে: কৃষিসচিব

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ২, ২০২২ , ৯:০৯ অপরাহ্ণ

কৃষিসচিব মোঃ সায়েদুল ইসলাম, সংগৃহীত চিত্র।

ঢাকা, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: গ্রীষ্মকালীন টমেটোর চাষ সম্প্রসারণের জন্য কৃষকদের বীজ, সারসহ প্রয়োজনীয় সব সহযোগিতা দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন কৃষিসচিব মোঃ সায়েদুল ইসলাম। তিনি বলেন, টমেটোর ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে প্রয়োজনে ভরা মৌসুমে ভারত থেকে আমদানি বন্ধ রাখা হবে। এ বিষয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সাথে আলাপ করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। শুক্রবার সাতক্ষীরার কলারোয়ার বাটরা গ্রামে গ্রীষ্মকালীন টমেটোর উপর মাঠ দিবস অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সচিব এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বারি) এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। মাঠ দিবসে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষের নির্বাহী পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) সাবিহা পারভীন। বারির মহাপরিচালক দেবাশীষ সরকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বারির পরিচালক অপূর্ব কান্তি চৌধুরী, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের খুলনা অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক ফজলুল হক, সাতক্ষীরার উপপরিচালক জামাল উদ্দীন, কলারোয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুনি বিশ্বাস প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
মাঠ দিবসে গ্রীষ্মকালীন টমেটো চাষিরা উপস্থিত ছিলেন। বাজারজাতে সমস্যা, ন্যায্যমূল্য না পাওয়া, কোল্ড স্টোরেজ না থাকাসহ বিভিন্ন সমস্যার কথা এ সময় কৃষকেরা জানালে কৃষিসচিব বলেন, বাটরা গ্রামে একটি বিপণন কেন্দ্র স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হবে। এছাড়া, শিগগিরই মাল্টি চেম্বার কোল্ড স্টোরেজ নির্মাণের ব্যবস্থা নেয়া হবে, যেখানে টমেটোর পাশাপাশি সবজি, আলু প্রভৃতি সংরক্ষণ করা যাবে। এছাড়া, কৃষিসচিব এ সময় সারের কারসাজি রোধে কঠোরভাবে নজরদারি অব্যাহত রাখার জন্যও মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন। উল্লেখ্য, সাতক্ষীরায় বারি উদ্ভাবিত গ্রীষ্মকালীন হাইব্রিড টমেটোর চাষ দিন দিন বাড়ছে। গত বছর জেলায় ৭০ হেক্টর জমিতে টমেটো চাষ হয়েছিল, এ বছর হয়েছে ৯৫ হেক্টর জমিতে।