সিত্রাং এর প্রভাবে ঝিনাইদহে সারাদিন বৃষ্টি

প্রকাশিত : অক্টোবর ২৪, ২০২২ , ৫:২১ অপরাহ্ণ

হেলালী ফেরদৌসী, নিজস্ব প্রতিনিধি, ঝিনাইদহ, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: বঙ্গোপসাগরের সৃষ্ট গভীর নিম্নচাপের প্রভাব পড়তে শুরু করেছে উপকূলের জেলা ঝিনাইদহে। সোমবার সকাল থেকেই জেলা শহর থেকে শুরু করে সব উপজেলায় গুড়ি-গুড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় “সিত্রাং”-এর প্রভাবে রোববার গভীর রাত থেকে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি হতে উত্তরের হিমেল হাওয়ায় এসেছে শীতের আমেজ। এরই ফলে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবনের। রোববার (২৩ অক্টোবর) মধ্যরাত থেকে শুরু হওয়া বৃষ্টি ভোরে কিছুটা কমে। সোমবার (২৪ অক্টোবর) সকাল থেকে আকাশে মেঘ জমতে থাকে এরপর শুরু হয় আবার টানা বৃষ্টি। আজ সকাল থেকে দেখা মেলেনি সূর্যের। টানা বৃষ্টি হওয়ায় জেলা জুড়ে সড়ক-মহাসড়কে মানুষের চলাচল কমেছে। বৃষ্টি উপেক্ষা করে যারা বের হচ্ছে তাদের ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। বৃষ্টি কারণে অনেককেই অলস সময় পার করতে দেখা গেছে। বেশি সমস্যা পড়েছে খেটে খাওয়া নিম্ন আয়ের মানুষগুলো। কাজ না পাওয়ায় অনেককে বসে থাকতে দেখা গেছে। শহরের পোষ্ট অফিস মোড়ে রিকশাচালক মিজান শাহ বলেন, সকাল থেকে এসে বসে আছি কিন্তু ভাড়া হচ্ছে না। দু-একটা ভাড়া হচ্ছে।রাস্তায় লোকজনই নেই, ভাড়া কীভাবে হবে। চা দোকানি সুজিত বলেন, বৃষ্টির কারণে বেচাকেনা খুবই কম। শহরে মানুষ কম আসছে, তো বিক্রি কি করে হবে।
সদর উপজেলার নগরবাথান এলাকা থেকে আসা আলমগীর হোসেন বলেন, সকাল থেকে বৃষ্টির কারণে বের হওয়া যাচ্ছিল না। তবু জরুরি কাজ থাকায় আসতে হলো। বৃষ্টিতে মানুষের ভোগান্তি বাড়িয়ে দিয়েছে।সকাল থেকে টানা বৃষ্টি হচ্ছে বলে ভোগান্তিটা একটু বেশি।হরে আশা শৈলকুপা উপজেলার আনোয়ার হোসেন বিশ্বাস নামে এক কৃষক ও ব্যবসায়ী বলেন, অসময়ে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টিতে বিপাকে পড়েছে সাধারণ মানুষ,বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ও আমন ধান চাষীরা। কিছু কিছু এলাকার মাঠ জুড়ে কৃষকের সোনালী স্বপ্ন গুড়ি গুড়ি বৃষ্টিতে ভিজে স্বপ্ন যেন ফিকে হয়ে যাবে। ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং এর প্রভাব মোকাবিলায় ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সর্ব প্রকার প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক মনিরা বেগম। তিনি বলেন, আমাদের সীমান্তবর্তী উপজেলা মহেশপুর ও কোটচাঁদপুরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের বিশেষ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ৬ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনওদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। প্রভাব মোকাবিলায় ইউনিয়নের চেয়ারম্যানদের প্রত্যেক ইউএনও ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। সার্বিকভাবে আমাদের সব প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। টানা বৃষ্টির কারণে শহরের কোথাও কোথাও সৃষ্টি হয়েছে জলাবদ্ধতার। আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে,বঙ্গোপসাগরে গভীর নিন্মচাপ থেকে তৈরি হওয়া ঘূর্ণিঝড় “সিত্রাং”- এর প্রভাবে লঘুচাপে পরিণত হয়েছে।এর প্রভাবেই সারাদেশের ন্যায় ঝিনাইদহে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। বুধবার থেকে বৃষ্টি কমবে বলে আশা আবহাওয়া অফিসের। বঙ্গোপসাগরে তৈরি হওয়া ঘূর্ণিঝড় “সিত্রাং”- এর প্রভাব কেটে যাওয়ার সাথে সাথে সারাদেশের তাপমাত্রা কমতে শুরু করবে। সেই সাথে শীত অনুভূত হতে থাকবে।এমনকি সারাদেশে শীত পড়বে বেশি।