ঠাকুরগাঁওয়ে ১৩৫ বিঘা কৃষি জমি অনাবাদি

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ১৭, ২০২২ , ১১:২০ অপরাহ্ণ

বিধান দাস, নিজস্ব প্রতিনিধি, ঠাকুরগাঁও, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলায় গেদুড়া ইউনিয়নের মারাধার গ্রামে ভূমি মন্ত্রণালয়ের ও উপজেলা প্রশাসনের অবহেলার কারণে ১৩৫ বিঘা তিন ফসলি কৃষি জমি দীর্ঘ সাত বছর ধরে অনাবাদি ও পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে। প্রশাসনিক কোনো হস্তক্ষেপ না থাকায় এতে সরকার প্রতিবছর প্রায় ১৪-১৫ লক্ষ টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সুবিশাল সমতল জমি মাঠ। নেই কোন আবাদি ফসল, জমির বুকে ঘাস খাচ্ছে শত-শত গরু-ছাগল। মাঠ যেন গো-চরণ ভূমিতে পরিণত হয়েছে। অথচ পাশের জমি গুলোতে গম, ভুট্টা, সরিষা ইত্যাদি ফসলের সমারোহ চলছে। সেখানে বরেন্দ্র বহুমুখি প্রকল্পের একটি গভীর নলকূপও রয়েছে এর পানি দিয়ে ওই জমি গুলোতে কৃষি বিপ্লব ঘটানো সম্ভব। এলাকাবাসী ওই জমিগুলি চুক্তি ভিত্তিক ভাবে চাষাবাদ করার জন্য প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও অনুমতি পাননি বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভূমি অফিস সূত্রে জানা যায়, তৎকালীন পাকিস্তান সরকারের আমলে সেনা সদস্যদের পুনর্বাসনের জন্য ওই জমি অধিগ্রহণ করা হয় এবং অধিগ্রহণ-কৃত জমি তৎকালীন বাঙ্গালী ও অবাঙ্গালী সেনা কর্মকর্তা ও সেনা সদস্যদের অণুকুলে বরাদ্দ প্রদান করা হয়। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময় বরাদ্দকৃত জমি সেনা সদস্যগণ ভোগ দখল ও দাবিদার না থাকায় তৎকালীন মহকুমা প্রশাসক, ঠাকুরগাঁও ওই জমিকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করেন। সে অনুযায়ী ওই জমি আবারো ভূমি মন্ত্রণালয় মালিকানা প্রাপ্ত হলে সরকারের নিয়ম অনুযায়ী চাষাবাদ করা হতো। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) (অ:দা:) একে এম শরীফুল হক বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী কোথাও জমি অনাবাদি রাখা যাবেনা, কি কারনে আবাদ হচ্ছেনা তা অফিস নথি দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।