আন্তর্জাতিক ও স্থানীয় বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের তুলনামূলক বাজার দর

প্রকাশিত : জুন ১৯, ২০২২ , ১০:০৭ অপরাহ্ণ

ঢাকা, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: দ্রব্যমূল্য ও বাজার পরিস্থিতি পর্যালোচনা সংক্রান্ত টাস্কফোর্স কমিটির এক সভা সম্প্রতি ঢাকায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের আন্তর্জাতিক মূল্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, বাংলাদেশে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের বাজার দর আন্তর্জাতিক বাজারের তুলনায় কম রয়েছে যা বর্তমান বিশ্বপ্রেক্ষাপটে পর্যালোচনার দাবি রাখে। যেমন: গত জানুয়ারি মাসে আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত সয়াবিন তেলের দাম ছিল প্রতি মেট্রিকটন ১ হাজার ৩৬৫ ডলার যা মে মাসে এসে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৮৭৮ ডলার। গত জানুয়ারি মাসে বাজারে পরিশোধিত খোলা সয়াবিনের প্রতি লিটার ছিল ১৫৫ টাকা যা মে মাসে দাঁড়িয়েছে ১৮৪ টাকায়। তুলনামূলক চিত্রে দেখা যায়, আন্তর্জাতিক বাজারে সয়াবিন তেলের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে ২৭ শতাংশ। পক্ষান্তরে, স্থানীয় বাজারে মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে ১৬ শতাংশ। গত জানুয়ারি মাসে আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত পাম তেলের দাম ছিল প্রতি মেট্রিকটন ১ হাজার ৩৪৩ ডলার যা মে মাসে এসে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৬৮৫ ডলার। গত জানুয়ারি মাসে বাজারে পরিশোধিত খোলা পাম তেলের লিটার ছিল ১৩৫ টাকা যা মে মাসে দাঁড়িয়েছে ১৭৩ টাকায়। তুলনামূলক চিত্রে দেখা যায়, আন্তর্জাতিক বাজারে মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে ২০ শতাংশ। পক্ষান্তরে, স্থানীয় বাজারে মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে ২২ শতাংশ।
গত জানুয়ারি মাসে আন্তর্জাতিক বাজারে ৫ শতাংশ সিদ্ধ মোটা চালের দাম ছিল প্রতি মেট্রিকটন ৪২৩ দশমিক ৫ ডলার যা মে মাসে এসে দাঁড়িয়েছে ৪৭৪ দশমিক ৭৫ ডলার। গত জানুয়ারি মাসে বাজারে মোটা চালের দাম প্রতি কেজি ছিল ৪৮ টাকা যা মে মাসে দাঁড়িয়েছে ৫০ টাকা। তুলনামূলক চিত্রে দেখা যায়, আন্তর্জাতিক বাজারে মোটা চালের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে ১১ শতাংশ। পক্ষান্তরে, স্থানীয় বাজারে মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে ৪ শতাংশ। গত জানুয়ারি মাসে আন্তর্জাতিক বাজারে হার্ড গমের দাম ছিল প্রতি মেট্রিকটন ৩৫৮ দশমিক ৫৭ ডলার যা মে মাসে এসে দাঁড়িয়েছে ৫১০ দশমিক ৮৮ ডলার। গত জানুয়ারি মাসে বাজারে আটার দাম ছিল প্রতি কেজি ৪২ টাকা যা মে মাসে দাঁড়িয়েছে ৪৪ টাকায়। তুলনামূলক চিত্রে দেখা যায়, আন্তর্জাতিক বাজারে আটার মূল্য বৃদ্ধি পেছেয় ৩০ শতাংশ। পক্ষান্তরে, স্থানীয় বাজারে মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে ৫ শতাংশ। গত জানুয়ারি মাসে আন্তর্জাতিক বাজারে অপারিশোধিত চিনির দাম ছিল প্রতি মেট্রিকটন ৪০২ দশমিক ৬২ ডলার যা মে মাসে এসে দাঁড়িয়েছে ৪২৮ দশমিক ৪২ ডলার। গত জানুয়ারি মাসে বাজারে পরিশোধিত চিনির দাম ছিল প্রতি কেজি ৭৬ টাকা যা মে মাসে দাঁড়িয়েছে ৮০ টাকায়। তুলনামূলক চিত্রে দেখা যায়, আন্তর্জাতিক বাজারে পরিশোধিত চিনির মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে ৬ শতাংশ। পক্ষান্তরে, স্থানীয় বাজারে মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে ৫ শতাংশ।
গত জানুয়ারি মাসে আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম ছিল প্রতি ব্যারেল ৮১ দশমিক ৫৯ ডলার যা মে মাসে এসে দাঁড়িয়েছে ১০৯ দশমিক ৭২ ডলার। গত জানুয়ারি মাসে বাজারে ডিজেলের দাম প্রতি ব্যারেল ছিল ৮০ টাকা যা মে মাসে বাজার মূল্য অপরিবর্তিত রয়েছে। তুলনামূলক চিত্রে দেখা যায়, আন্তর্জাতিক বাজারে ডিজেলের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে ২৬ শতাংশ। পক্ষান্তরে, স্থানীয় বাজারে কোন মূল্য বৃদ্ধি হয়নি। উল্লেখ্য, গত জানুয়ারি থেকে মে মাস পর্যন্ত আন্তর্জাতিক বাজার দর রয়টার্স এবং স্থানীয় বাজার দর টিসিবির গড় মূল্য বিবেচনা করা হয়েছে।