ঝিনাইদহে আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান সংগঠনের আলোচনা সভা

প্রকাশিত : অক্টোবর ২২, ২০২২ , ৭:৫২ অপরাহ্ণ

হেলালী ফেরদৌসী, নিজস্ব প্রতিনিধি, ঝিনাইদহ, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: ‘মুক্তিযুদ্ধেও চেতনা বাস্তবায়নই আমাদের অঙ্গীকার’এ প্রতিপাদ্য নিয়ে আজ অনুষ্ঠিত হয়েছে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের প্রতিনিধিত্বকারী সংগঠন এর ঝিনাইদহে ‘আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান’ সংগঠনের আলোচনা সভা ।মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তোলা এবং বিভিন্ন ইস্যুতে জনগণকে সচেতন করার লক্ষ্যে আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ঝিনাইদহ জেলা কমিটির আয়োজনে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পার্ক মুজিব চত্বরে শনিবার
(২২অক্টোবর) দুপুরে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ঝিনাইদহ জেলা কমিটির সভাপতি বিশিষ্ট ঠিকাদার মোঃ আসাদুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের প্রতিনিধিত্বকারী সংগঠন ‘আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান’ সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মোঃ হুমায়ুন কবির এবং প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম নয়ন।বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডঃ মোঃ আব্দুর রশিদ,কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি আলহাজ মোঃ রবিউল ইসলাম,মীর মোবাশ্বেও আলী ও আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ঝিনাইদহ জেলা কমিটির মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ও ঝিনাইদহ জজ কোর্টেও এপিপি অ্যাডঃ সালমা ইয়াসমিন প্রমুখ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে হুমায়ুন কবির এবং বিশেষ অতিথির বক্তব্যে অ্যাডঃ আব্দুর রশিদ বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধাদের প্রাণের বিনিময়ে এ দেশ স্বাধীন হয়েছে।
‘সুন্দর সমাজ ব্যবস্থার প্রত্যাশায় জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানেরা মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন। সেই সুন্দর সমাজ এখন আমরা দেখতে পাচ্ছি না। দেশে এখন ধর্মীয় স¤প্রীতির বড়ই অভাব। স্বাধীনতা বিরোধীরা এখনও নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে সকল ষড়যন্ত্র রুখে দিতে হবে।’ অ্যাডঃ আব্দুর রশিদ বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধাদের সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সদস্যদের সুরক্ষা দিতে না পারা। জাতির জনকের আহ্বানে সাড়া দিয়ে আমরা মুক্তিযুদ্ধ করেছি। অথচ দেশ স্বাধীনের পর আমরা তাকেই রক্ষা করতে পারিনি। তিনি প্রশাসন থেকে শুরু করে সব পর্যায়ে মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের প্রজন্মকে সম্মান ও মর্যাদা দেয়ার আহ্বান জানান।