কোনদিন স্বপ্নেও ভাবিনি নিজের ছেলের জন্য এভাবে হুইল চেয়ার নিতে হবে

প্রকাশিত : জানুয়ারি ৩, ২০২৩ , ৬:১৮ অপরাহ্ণ

আশরাফুল ইসলাম, নিজস্ব প্রতিনিধি, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি-ইউএনডিপি’র অধীনে ইউপিপি প্রজেক্টের আওতায় প্রায় ১০ বছর আগে ২০১৩ সালে ২৫ জন বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুর মাঝে হুইলচেয়ার বিতরণ করেছি। ভাগ্যের নির্মম পরিহাসে আজকে নিজের ছেলের জন্যেই হুইলচেয়ার নিতে হলো। কাঁদতে কাঁদতে এভাবেই নিজের অনুভূতি জানাচ্ছিলেন মহিলা আনসার সদস্য মোসা. রোজিনা খাতুন। বড় ছেলে রাইয়ান হোসেনের জন্য বিনামূল্যে হুইলচেয়ার নেয়ার পর আবেগে আপ্লুত হয়ে কাঁদতে কাঁদতে বলেন, কোনদিন স্বপ্নেও ভাবিনি নিজের ছেলের জন্য এভাবে হুইলচেয়ার নিতে হবে। যতক্ষণ অনুষ্ঠানে ছিলাম, সারাক্ষণ শুধু ১০ বছর আগের নিজের হুইলচেয়ার বিতরণ করার কথা মনে পড়েছে।
চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের নিয়ে তৈরি “আনন্দধারা সোনামনি সেন্টারে” হুইলচেয়ার ও শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে রোজিনা খাতুন এসব কথা বলেন। মঙ্গলবার (০৩ জানুয়ারি) সকালে জেলা শহরের শিবতলা উদয় সংঘ মোড়ে আনন্দধারা সোনামনি সেন্টারে হুইলচেয়ার ও শীতবস্ত্র বিতরণ করে ফাউন্ডেশন ফর উইমেন এন্ড চাইল্ড এ্যাসিসট্যান্স (এফডব্লিউসিএ)। জেলা শহরের রেলস্টেশন জিয়ানগর এলাকার মনোয়ার হোসেনের স্ত্রী রোজিনা খাতুন। চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার ০১ ওয়ার্ড মহিলা আনসার দলের দলনেতা তিনি। বড় ছেলে রাইয়ান হোসেন (০৭) ও রাফাত হোসেন (০২) দুইজনই বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশু। ২০১০-২০১৪ সাল পর্যন্ত ইউএনডিপি’র ইউপিপি প্রজেক্টে কাজ করেন রোজিনা খাতুন। হুইলচেয়ার ও শীতবস্ত্র পেয়ে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের অভিভাবকরা। এসময় উপস্থিত ছিলেন, ডেলাওয়ার স্টেট ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক ড. মুক্তি রানা, ফাউন্ডেশন ফর উইমেন এন্ড চাইল্ড এ্যাসিসট্যান্স-এফডব্লিউসিএ’র পরিচালক ড. সাদিকুর রহমান, কাউন্সিলর মতিউর রহমান, এডমিন অফিসার ফিজিওথেরাপিস্ট মো. শাহিন হোসেন, সাইকো সোশ্যাল শিক্ষক মো নাহিদ বাবু, মোসা. আরিফা খাতুনসহ অন্যান্যরা। উল্লেখ্য, চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন ছেলেমেয়েদের জন্য গত ৬ মাস আগে প্রতিষ্ঠা হয় আনন্দধারা সোনামনি সেন্টার। সেখানে সিপি, ডাউন সিনড্রোম, বুদ্ধিসহ বহুমাত্রিক প্রতিবন্ধী অটিস্টিক শিশুরা পড়াশোনা করছে।