কলকাতার জনগণকে সম্পৃক্ত করে বাংলাদেশ উপ-হাইকমিশনে পদ্মা সেতু উদ্বোধন উদযাপিত

প্রকাশিত : জুন ২৬, ২০২২ , ৮:১১ পূর্বাহ্ণ

কলকাতা, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: বিভিন্ন প্রচারণা ও অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে কলকাতায় বাংলাদেশ উপ-হাইকমিশন পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের ঐতিহাসিক মুহূর্তটি উদযাপন করেছে। এ উপলক্ষ্যে শনিবার (২৫ জুন ২০২২) সকালে উপ-হাইকমিশন প্রাঙ্গনের বাংলাদেশ গ্যালারিতে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতেই মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন যথাক্রমে বাংলাদেশ উপ-হাইকমিশনের কাউন্সেলর (শিক্ষা ও ক্রীড়া) জনাব রিয়াজুল ইসলাম ও কাউন্সেলর (কনস্যুলার) জনাব মোঃ বশির উদ্দিন। পদ্ম সেতুর উপর নির্মিত একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করার পর বাংলাদেশ হতে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটি উপস্থিত দর্শকদের জন্য সরাসরি সম্প্রচার করা হয়। উপ-হাইকমিশনের অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য ও বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মৈত্রী সম্মাননা প্রাপ্ত শিক্ষাবিদ ও গবেষক অধ্যাপক ড. পবিত্র সরকার, সাংবাদিক ও কলকাতা প্রেস ক্লাবের সভাপতি শ্রী স্নেহশীষ সুর, এবং চলচ্চিত্র পরিচালক ও ফ্রেন্ডস অব বাংলাদেশ-এর সভাপতি শ্রী গৌতম ঘোষ। অনুষ্ঠানে সমাপনী বক্তব্য রাখেন কলকাতায় বাংলাদেশের উপ-হাইকমিশনার জনাব আন্দালিব ইলিয়াস। উদযাপনী অনুষ্ঠানের আলোচনা পর্বে অতিথিরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা গড়ায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ এবং দূরদর্শী নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করেন। তাঁরা বলেন যে সম্পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিত পদ্মা সেতু বাংলাদেশকে বিশ্বসভায় এক উচ্চতর মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত করেছে। সমাপনী বক্তব্যে উপ-হাইকমিশনার পদ্মা সেতুর সফল নির্মাণের পাশাপাশি বাংলাদেশ সরকারের চলমান অন্যান্য মেগা প্রকল্পগুলোর কথাও তুলে ধরেন। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা এবং রূপকল্প ২০৪১ বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রীর দৃঢ় সঙ্কল্পের কথা উল্লেখ করে তিনি এ লক্ষ্য বাস্তবায়নে উপ-হাইকমিশনের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীর আন্তরিক সহায়তা কামনা করেন। পদ্মা সেতুর উদ্বোধন অনুষ্ঠান উপলক্ষ্যে কলকাতায় বাংলাদেশ উপ-হাইকমিশনের উদ্যোগে এবং কলকাতা পৌর কর্পোরেশনের সৌজন্যে কলকাতার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে বিজ্ঞাপনের বিলবোর্ডে ২৪ জুন থেকে পদ্মা সেতুর উদ্বোধন সংক্রান্ত ছবি এবং তথ্য প্রদর্শন করা হয়। ব্যাপক প্রচারণার কারণে কলকাতা তথা পশ্চিমবঙ্গের জনগণের মধ্যে শত বাধা অতিক্রম করে কারিগরি এবং প্রকৌশল বিশ্বে নতুন রেকর্ড সৃষ্টিকারী পদ্মা সেতু সম্পর্কে যথেষ্ট আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে, এবং তাঁরা এই ঐতিহাসিক অর্জনের জন্য সামাজিক এবং অন্যান্য মাধ্যমে বাংলাদেশীদের অভিনন্দন জানাচ্ছেন।