বেগমগঞ্জে যুবককে হত্যার চারদিন পর বাবা ভাইসহ তিন জন আটক

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ৮, ২০২২ , ২:০৩ পূর্বাহ্ণ

ইয়াকুব নবী ইমন, নোয়াখালী জেলা প্রতিনিধি, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: নোয়াখালী বেগমগঞ্জে হত্যা করে মরদেহ মাটিচাপা দেয়ার চারদিন পর মাটি খুঁড়ে নূর হোসেন শাকিল (২৫) নামের এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের বাবা ও ভাইসহ তিন জনকে পুলিশ তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় আটককৃতরা হলো, নিহতের ছোট ভাই এমরান হোসেন এমাম হোসেন, বাবা বাবুল হোসেন । বুধবার (৭ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যার দিকে উপজেলার ৯নং মিরওয়ারিশপুর ইউনিয়নের ৭নম্বর ওয়ার্ডের লালপুর এলাকার আব্দুল করিম হাজী বাড়ির পুকুর পাড় থেকে পুলিশ এ লাশ উদ্ধার করে। এর আগে, গত শনিবার (৪ সেপ্টেম্বর) রাত ১১টার দিকে পরিবারের সদস্যরা একত্রিত হয়ে শাকিলকে হত্যা করে লাশ বসতঘর সংলগ্ন পুকুর পাড়ে মাটিচাপা দিয়ে রাখে। নিহত শাকিল (২৫) উপজেলার ৯নং মিরওয়ারিশপুর ইউনিয়নের ৭নম্বর ওয়ার্ডের লালপুর এলাকার আব্দুল করিম হাজী বাড়ির বাবুল হোসেনের বড় ছেলে। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বেগমগঞ্জ সার্কেল নাজমুল হাসান রাজিব জানান গত শনিবার পারিবারিক কলহের জের ধরে শাকিলকে পরিবারের সদস্যরা একত্রিত হত্যা করে। এরপর বসতঘর সংলগ্ন পুকুর পাড়ে নিহতের লাশ দাফন ছাড়া মাটিচাপা দিয়ে রাখে। বুধবার বিকেলে ঘটনাটি জানাজানি হলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বাবা ও ভাইদের কথাবার্তা অসংলগ্ন হলে তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনলে তারা হত্যার সত্যতা স্বীকার করে। পরে রাত সাড়ে সাতটার দিকে পুলিশ ভসত ঘরের পিছনে মাটিতে পুতে রাখা শাকিলের মরদেহ উদ্ধার করে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নিহত শাকিল পরিবারের সদস্যের ওপর প্রায় নানা কারণে অত্যাচার করত। এসব ঘটনার জের ধরে পরিবারে কলহ দেখা দেয়। একপর্যায়ে ওই কলহের জের ধরে পরিবারের সদস্যরা তাকে হত্যা করে মরদেহ মাটিচাপা দিয়ে রাখে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ২৫০শয্যা বিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হবে। পুলিশ বিষয়টি খতিয়ে দেখছে। এ বিষয়ে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।