ভাষা ও সংস্কৃতি হচ্ছে জাতিসত্ত্বার শেকড়:মোস্তাফা জব্বার

প্রকাশিত : মে ১৫, ২০২২ , ৫:৫১ অপরাহ্ণ

ময়মনসিংহ, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন:ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে রবীন্দ্র-নজরুলকে অস্বীকার করার কোন সুযোগ নেই। বাংলা ভাষা ও বাঙালি সংস্কৃতি হচ্ছে আমাদের জাতিসত্ত্বার শেকড়।
মন্ত্রী শনিবার ময়মনসিংহ প্রেসক্লাবে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাদিবস উপলক্ষ্যে বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরাম ও বিশ্ববিদ্যালয় ট্রাস্টি বোর্ডের উদ্যোগে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
মন্ত্রী বলেন, কাজী নজরুল ইসলাম আমাদের বড় অহংকার। বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরামের উদ্যোগ ও প্রচেষ্টার ফসল জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়কে ত্রিশালে জাতীয় কবির স্মৃতির সম্মানের প্রতীক হিসেবে তিনি উল্লেখ করেন। ১৯৯৮ সালের ১৪ মে ত্রিশালে কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তের দিনটি ছিল পুরো দেশবাসীর জন্য এক ঐতিহাসিক বলে তিনি উল্লেখ করেন। মন্ত্রী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেয়ার সময় একে একটি সাংস্কৃতিক ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে গড়ে তুলতে চেয়েছিলাম। প্রধানমন্ত্রী ১২টি প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুমোদন দেন। কিন্তু ২০০৬ সালে একে সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে অনুমোদন দেয়। এটি কেবল নজরুল চর্চা কেন্দ্র নয়, সাংস্কৃতিক ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবেই গড়ে উঠুক। নজরুলকে তুলে ধরতে বেশি বেশি নজরুল চর্চা হওয়া উচিৎ। এ লক্ষ্যে তিনি জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়সহ কবি নজরুল ইসস্টিটিউটকে উদ্যোগী ভূমিকা গ্রহণের আহ্বান জানান।
মোস্তাফা জব্বার আরো বলেন, নজরুলের আদর্শ বঙ্গবন্ধু ধারণ করেছেন এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শ আমরা ধারণ করেছি বলেই এই উপমহাদেশে বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িক জাতিরাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। কবি কাজী নজরুল ইসলামের কৈশোরের স্মৃতি বিজড়িত ময়মনসিংহের ত্রিশালে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠাকে বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের মানুষের বাতিঘর বলে তিনি উল্লেখ করেন। বৃহ্ত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরাম-এর ময়মনসিংহ জেলা শাখার সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন হিলুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ময়মনসিংহ জেলা পরিষদ প্রশাসক অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ম. হামিদ, ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক রাশেদুর হাসান শেলী, সাংবাদিক সালিম হাসান এবং নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নজরুল ইসলাম প্রমুখ বক্তৃতা করেন।