নওগাঁর পত্নীতলায় আদিবাসীদের ঐতিহ্যবাহী কারাম উৎসব পালিত

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ১১, ২০২২ , ৬:৫৯ পূর্বাহ্ণ

আলহাজ্ব বুলবুল চৌধুরী, নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: নওগাঁয় পত্নীতলায় নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে পালিত হলো ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর (আদিবাসীদের) ধর্মীয় প্রধান অনুষ্ঠান ঐতিহ্যবাহী কারাম উৎসব। বংশ পরম্পরায় যুগ যুগ ধরে প্রতি বছর উত্তরের সমতল ভূমির আদিবাসীরা এই কারাম উৎসব পালন করে। পত্নীতলা উপজেলার আদিবাসী নেতৃবৃন্দের উদ্যোগে ঐতিহাসিক কারাম উৎসব ও আদিবাসী সাংস্কৃতিক মিলন মেলা উদযাপন কমিটির আয়োজনে শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে শুরু করে শনিবার দিনব্যাপী উপজেলা শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে (নজিপুর পাবলিক মাঠে) ঐতিহাসিক কারাম উৎসব ও আদিবাসী সাংস্কৃতিক মিলন মেলার আয়োজন করা হয়। এসময় উপজেলার বিভিন্ন এলাকা সহ জেলা ও জেলার বাহির থেকে আগত আদিবাসী বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠন উৎসবে যোগ দিয়ে তাদের নিজেদের ভাষা সাংস্কৃতিক আর ঐতিহ্য তুলে ধরেন। ঐতিহাসিক কারাম উৎসব ও আদিবাসী সাংস্কৃতিক মিলন মেলা উদযাপন কমিটির সভাপতি জতিন টপ্যের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে কারাম উৎসব ও আদিবাসী সাংস্কৃতিক মিলন মেলায় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সংসদের আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও ৪৭ নওগাঁ-২ এর সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শহীদুজ্জামান সরকার। এতে বিভিন্ন স্থান থেকে আসা বিভিন্ন ক্ষুদ্র জাতিসত্তার সম্প্রদায়ের সাংস্কৃতিক সংগঠন গুলোর প্রায় ২৫ টি দল নাচ গান পরিবেশন করে নিজস্ব কৃষ্টি কালচার তুলে ধরেন। এসময় প্রধান অতিথি সহ অতিথিবৃন্দ আদিবাসী সাংস্কৃতিক বিভিন্ন স্টল পরিদর্শন ও নাচ গান উপভোগ করেন।
এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব আব্দুল গাফফার, নজিপুর পৌরসভার মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী বাবু, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা: রুমানা আফরোজ, উপজেলা পরিষদে ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আহাদ রাহাদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, কারিতাস রাজশাহী অঞ্চলের ডিএম দিপক এককা, আদিবাসী নেতা নরেন পাহান, সুধির তির্কী, পরেশ টুডু, যোশেফ, সুজিত পাহান, বিশ্বনাথ, ঐতিহাসিক কারাম উৎসব ও আদিবাসী সাংস্কৃতিক মিলন মেলা উদযাপন কমিটির সাঃসম্পাদক মিঃ ইগ্রেসিউশ (আনন্দ) সহ উপজেলা ও জেলা পর্যায়ের আদিবাসী নেতৃবৃন্দ প্রমুখ। জাতীয় আদিবাসী পরিষদ রাজশাহীর সাংগঠনিক সম্পাদক নরেন পাহান বলেন, প্রতি বছরই কারাম উৎসব করা হয়ে থাকে। এ উৎসবে সহদ্বর দুই ভাই ধর্মা ও কর্মা’র জীবনী তুলে ধরা হয়। এতে করে আমাদের সংসারে অভাব-অনটন দূর হয়ে যায়। বিভিন্ন রোগবালাই থেকে রক্ষা হয়। এই বিশ্বাস থেকে বংশপরম্পরায় এই কারাম ডাল পূজা করে আসা হচ্ছে। আদিবাসী যুব পরিষদ পত্নীতলার সভাপতি পরেশ টুডু বলেন, এ উৎসবের মূল উদ্দেশ্য আদিবাসীদের নিজেদের ভাষা সাংস্কৃতিক আর ঐতিহ্য তুলে ধরার পাশাপাশি সারাদেশে আদিবাসীদের উপর অত্যাচার, উচ্ছেদ, নির্যাতন ও দাবি আদায়ের লক্ষ্যে সঙ্ঘবদ্ধ করা। আদিবাসীদের ভাষা ও সংস্কৃতি বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। এটা রক্ষার্থে সরকারি ভাবে এগিয়ে আসা প্রয়োজন মনে করেন। এছাড়া সভায় আদিবাসী নেতৃবৃন্দরা ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীদের সংবিধানে আদিবাসী হিসেবে স্বীকৃতি ও সমতলের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী মানুষের জন্য পৃথক ভূমি কমিশন গঠনের দাবি জানান।