ধানের শীষ কিছু দিয়ে থাকলে নৌকায় ভোট চাই না

প্রকাশিত : জানুয়ারি ১৫, ২০২৩ , ১২:৩১ পূর্বাহ্ণ

আশরাফুল ইসলাম, নিজস্ব প্রতিনিধি, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন বলেছেন, ২৮ বছর ক্ষমতায় থেকে ধানের শীষ দেশের জনগণকে কি দিয়েছে? দেশকে ধানের শীষ কিছু দিয়ে থাকলে আগামীতে নৌকায় ভোট চাই না। সার-বিদ্যুতের দাবিতে তারা ২১ জন কৃষককে হত্যা করেছে। রাজশাহীর বাঘমারায় বাংলা ভাই তৈরি করেছে। ধানের শীষ দেশে খুনের রাজস্ব কায়েম করেছে। দেশকে সংকটে ফেলেছে, গুম, হত্যা, লুটপাট করেছে। অপরদিকে, নৌকা প্রতীক দেশে শান্তি ও উন্নয়ন ফিরিয়েছে। শনিবার (১৪ জানুয়ারি) চাঁপাইনবাবগঞ্জে আ.লীগের প্রতিনিধি সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। আগামী ২৯ জানুয়ারি রাজশাহীতে শেখ হাসিনার মহা-সমাবেশ ও ০১ ফেব্রুয়ারী চাঁপাইনবাবগঞ্জের দুইটি আসনের উপ-নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করতে এই প্রতিনিধি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে শনিবার (১৪ জানুয়ারি) দুপুরে নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজ মাঠে এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এসময় তিনি আরও বলেন, নির্বাচনের আগে বিএনপির লোকজন বলেছিল, নৌকাকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করলে দেশের মসজিদে আযান দেয়া বন্ধ হয়ে যাবে, দেশ ভারত হয়ে যাবে। কিন্তু তার উল্টোটা হয়েছে। বরং জিয়াউর রহমান পানি চুক্তির নামে ভারতে গিয়ে গান্ধীর পা টিপেছিলো। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৯৬ সালের নির্বাচনের ৬ মাসের মধ্যে পানি-চুক্তি করেছে। আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এখন সারাবিশ্বে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে নৌকার উন্নয়ন পৌঁছানোর আহ্বান জানিয়ে এসএম কামাল বলেন, সারাবিশ্ব এখন বলছে, সংকট নিরসনে নৌকার মালিক শেখ হাসিনার কোন বিকল্প নাই। বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে ভোট ডাকাতি করেছে, মানুষ খুন, গুম করেছে। এসব ছাড়া তারা জনগণের জন্য আর কিছুই করেনি। কিন্তু আমরা এখন গর্ব করতে পারি, শেখ হাসিনা মানবতার দিক থেকে শ্রেষ্ঠ প্রধানমন্ত্রী। তিনি আরও বলেন, ২০২২ সালে বিশ্বের বিভিন্ন মিডিয়ায় এসেছে, এই বছর বাংলাদেশের জন্য তাক লাগানোর বছর। উন্নয়নের মাইলফলকের বছর। এই বছর পদ্মা সেতু, মেট্রোরেলের মতো বড় বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে। ২০২২ সালে সারাদেশে একসাথে ১০০টি সেতুর উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এতো উন্নয়নের পরেও যদি নৌকার বিজয় না আসে, তাহলে আ.লীগের কোন পদ-পদবিতে থাকার কারো যোগ্যতা নেই। শালিস করার জন্য ইউনিয়ন পর্যায়ে সভাপতি সাধারণ সম্পাদক বানানো হয়নি। শেখ হাসিনার উন্নয়ন পৌঁছে দেয়ায় আপনাদের কাজ। শেখ হাসিনা যে মর্যাদা দিয়েছেন, তা সবাইকে সেটা রক্ষা করতে হবে। আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন বলেন, গ্রুপিংয়ের দোহায় দিবেন না। সব ভুলে নৌকার পক্ষে কাজ করুন। শেখ হাসিনার সকল উন্নয়ন জনগণের কাছে তুলে ধরুন। ডাকাতকে বিশ্বাস করা যায়, কিন্তু বিএনপিকে নয়। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে বিশ্বাস করা যায়, কিন্তু বিএনপিকে নয়। বর্তমানে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। তাই বিএনপি শেখ হাসিনাকে টার্গেট করেছে। তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। অথচ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ব দরবারে শোষিতদের পক্ষে কথা বলছেন। বাবার মতো শোষিতদের পক্ষে মাথা উঁচু করে কথা বলছেন। এমনকি জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব বান কি মুন বলেছিলেন, সারাবিশ্বে এখন উন্নয়নের রোল মডেল বাংলাদেশ। তাই উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে নৌকার বিজয়ের কোন বিকল্প নাই। প্রতিনিধি সম্মেলনে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব রুহুল আমিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল, সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি ফেরদৌসী ইসলাম জেসী, জেলা আ.লীগের সদস্য ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মোখলেসুর রহমান, চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওদুদের সঞ্চালনায় প্রতিনিধি সম্মেলনের সভাপতিত্ব করেন, জেলা আ.লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মুহা. জিয়াউর রহমান। সম্মেলনে আগামী ০১ ফেব্রুয়ারী অনুষ্ঠিতব্য উপ-নির্বাচনে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ (গোমস্তাপুর, নাচোল, ভোলাহাট) আসনে নৌকার প্রার্থী সাবেক এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মুহা. জিয়াউর রহমান এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ (সদর) আসনে নৌকার প্রার্থী সাবেক এমপি জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওদুদকে বিজয়ী করতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানান নেতৃবৃন্দ।