স্মার্ট বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় কৃষি শিল্প ও শিক্ষায় স্মার্ট হতে হবে

প্রকাশিত : জানুয়ারি ২২, ২০২৩ , ৬:৪৩ অপরাহ্ণ

ঢাকা, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, স্মার্ট বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় সবার আগে কৃষি, শিল্প ও শিক্ষায় স্মার্ট হতে হবে। ডিজিটাল বাংলাদেশের সুদৃঢ় ভিত্তির ওপর দাঁড়িয়ে ২০৪১ সালের মধ্যে এরই ধারাবাহিকতায় স্মার্ট বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার চলমান অগ্রযাত্রাকে বেগবান করতে হবে। মন্ত্রী শনিবার ঢাকায় বিয়াম মিলনায়তনে বৃহত্তর ময়মনসিংহ সমন্বয় পরিষদের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ আহ্বান জানান। সাবেক সচিব ড. খোন্দকার শওকত হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (মেরিটাইম) রিয়ার এডমিরাল মো: খুরশেদ আলম (অব:), প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এবিএম আবদুল্লাহ বক্তৃতা করেন।
টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলকে কৃষি-প্রধান অঞ্চল উল্লেখ করে বলেন, আইওটি প্রয়োগের মাধ্যমে কৃষি ও মৎস্য চাষে বিপ্লব ঘটিয়ে এই অঞ্চলকে স্মার্ট অঞ্চল হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে আমাদের সম্মিলিত উদ্যোগে কাজ করতে হবে। ২০০৯ সালের পর ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচি বাস্তবায়নের ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ উন্নয়নের প্রতিটি সূচকে বিস্ময়কর অগ্রগতি অর্জন করেছে। ময়মনসিংহকে কৃষি-প্রধান অঞ্চল থেকে ডিজিটাল প্রযুক্তি দক্ষতা সম্পন্ন অঞ্চল হিসেবে গড়ে তোলার পাশাপাশি কৃষিতে ডিজিটাল প্রযুক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে অভাবনীয় পরিবর্তনের সূচনা করতে হবে বলে মন্ত্রী উল্লেখ করেন। মন্ত্রী আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত পাঁচ বছরে মোবাইল ফোন ও কম্পিউটার প্রযুক্তি সাধারণের নাগালে পৌঁছে দিয়ে বঙ্গবন্ধুর অঙ্কুরিত বীজটি চারা গাছে এবং ২০০৯ থেকে ২০২১ পর্যন্ত তা বিরাট মহিরূহে রূপান্তর করেছেন। এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশকে তিনি পঞ্চম শিল্প বিপ্লবের নেতৃত্ব প্রদানের যোগ্যতায় উপনীত করেছেন বলে মন্ত্রী উল্লেখ করেন।