ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবসে বাংলাদেশ দূতাবাস আম্মানে ডিজিটাল হাজিরা চালু

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ১৩, ২০২২ , ৮:৫৪ অপরাহ্ণ

আম্মান, ব্রডকাস্টিং নিউজ কর্পোরেশন: আম্মানস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস সোমবার (১২ ডিসেম্বর) ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনার সাথে ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস ২০২২ পালন করে। আম্মানে বসবাসরত বাংলাদেশ কমিউনিটির সদস্যগণ এ উপলক্ষ্যে দূতাবাসে আয়োজিত অনুষ্ঠানে দূতাবাসের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সাথে যোগ দেন। অনুষ্ঠানটি শুরু হয় পবিত্র কোরআন থেকে আয়াত পাঠের মাধ্যমে। তারপর ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস উপলক্ষ্যে “ ডিজিটাল বাংলাদেশ: রূপকল্প ২০২১” এর অর্জন বিষয়ক আলোচনা সভায় মান্যবর রাষ্ট্রদূত ও বাংলাদেশ কমিউনিটির সদস্যগণ অংশগ্রহণ করেন। মান্যবর রাষ্ট্রদূত নাহিদা সোবহান তাঁর বক্তব্যর শুরুতে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী, জাতীর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।
মান্যবর রাষ্ট্রদূত তার বক্তব্য বলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সুখী সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়তে ২০০৮ সালের ১২ ডিসেম্বর তারিখে “ডিজিটাল বাংলাদেশ: রূপকল্প ২০২১” ঘোষণা করেন। আজকের দিনের তাৎপর্য হচ্ছে ২০০৮ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যে স্বপ্ন দেখেছিলেন আমাদের দেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশে রূপান্তরের তার সফল বাস্তবায়নের। আর এর স্বপ্নদ্রষ্টা হচ্ছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর মাননীয় আইসিটি উপদেষ্টা জনাব সজীব ওয়াজেদ। ওয়ার্ল্ড ইকোনোমিক ফোরাম এর নাম দিয়েছে ফোরথ ইন্ডাস্ট্রিয়াল রেভুলেশন। বাংলাদেশ গত ১৩ বছরে মূলত ৪ টি ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জন করেছে। এগুলো হল সুশাসন, উন্নত যোগাযোগ, দ্রুত সেবা দান ও রিমোট প্রযুক্তির ব্যবহার। ডিজিটাল বাংলাদেশ হচ্ছে আমাদের নিকট অক্সিজেনের মত। আমরা সব সময় নিচ্ছি কিন্তু অনুভব করতে পারছি না। মান্যবর রাষ্ট্রদূত আরও বলেন বাংলাদেশ বর্তমানে পৃথিবীর অন্যতম একটি উন্নয়নশীল দেশ। তিনি বলেন আমাদের উন্নয়ন ও অগ্রগতি আমরা করোনা সময়ে উপলব্ধি করতে পেরেছি। আমাদের দেশে ১২০ মিলিয়ন লোক বর্তমানে ইন্টারনেট ব্যবহার করছে। আমাদের দেশের খুদে উদ্ভাবকরা আজকে আমেরিকা, ইউরোপে রোবট রপ্তানি করছে। আজকে বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি পোশাক খাত হতে বৈদেশিক মুদ্রা আয় করে। ২০৪১ সালের মধ্যে আমরা তথ্য প্রযুক্তি খাতে সবচেয়ে বেশি আয় করতে পারবো। গত ১৩ বছরে বাংলাদেশ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যাপক ডিজিটালাইজেশন করেছে। মান্যবর রাষ্ট্রদূত বর্তমান সরকারের সফল উদ্যোগ ও সাফল্যের কথাও তুলে ধরেন। উপস্থিত প্রবাসী বাংলাদেশী নেতৃবৃন্দ বাংলাদেশের বর্তমান অগ্রগতি ও অর্জনের বিষয়ে আলোচনা করেন ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। এরপর ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে বর্তমান সরকার এর বিভিন্ন পদক্ষেপ ও অর্জনের উপর নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে মান্যবর রাষ্ট্রদূত নাহিদা সোবহান বাংলাদেশ দূতাবাস আম্মানে প্রবেশের জন্য ডিজিটাল হাজিরা কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।